রবিবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

‘আবারও বলব, আমি চিরদিন থাকব না, ৭৪ বছর অনেক বেশি’

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের নেতাকর্মীদের বয়সের বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেছেন,‘আমি আবারও বলব, চিরদিন কেউ বেঁচে থাকে না। আমিও থাকব না। কারণ আমারও তো বয়স হয়ে গেছে। ৭৪ বছর পার হয়ে গেছে, এটি মনে রাখতে হবে; এই বয়স অনেক বেশি।’

বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় তিনি এ সব কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে সভায় বক্তব্য রাখেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে একটা আদর্শ নিয়ে চলতে হবে। সংগঠনগুলোকে এটি চিন্তা করতে হবে, আমাদের একটা দায়িত্ব আছে এ দেশের মানুষের প্রতি। আমাদের আওয়ামী লীগ যেমন বাংলাদেশের জনগণের জন্য দায়িত্ব; ঠিক সেই সঙ্গে আমাদের ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ যুবলীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগসহ সবাইকে আমি বলব, সকলের কিন্তু নিজ নিজ জায়গায় নিজ নিজ এলাকাকেন্দ্রিক দেখভালের দায়িত্ব আছে। সেই দায়িত্বটাও পালন করতে হবে এবং সংগঠন আর জাতির পিতার চেতনাটাকে ধারণ করতে হবে।’

‘আমি আবারও বলব, চিরদিন কেউ বেঁচে থাকে না। আমিও থাকব না। কারণ আমারও তো বয়স হয়ে গেছে। ৭৪ বছর পার হয়ে গেছে। এটা মনে রাখতে হবে। এ বয়স অনেক বেশি।’

বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধির প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের লংজিভিটি আমরা বাড়িয়ে ৭২ বছরে এনেছি। তারপরও তার থেকে বেশিই আছে। তারপরও প্রস্তুত থাকতে হবে। কারণ জন্মালে তো মরতেই হবে, এটি ঠিক। কিন্তু সংগঠনটাকে তো আমি চেষ্টা করেছি, আমার মতো গুছিয়ে দিতে। সেই ক্ষেত্রে আমি বলব যে, আমাদের সহযোগী সংগঠন যে কয়টা আছে, খুব দ্রুত একেবারে তূণমূল পর্যায় থেকে আপনাদের সম্মেলনগুলো করতে হবে।’

সম্মেলন হয়ে যাওয়া জেলা কমিটিগুলো পূর্ণাঙ্গ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কিছু সম্মেলন হয়ে গেছে, করোনার জন্য আমরা করে দিতে পারিনি। সেই কমিটিগুলো করতে হবে। কমিটিটা হয়ে গেলে পরে তখন কিন্তু অনেক কাজ সহজ হয়।’

তার আগে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে সম্পাদকমণ্ডলীর সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সূচনা বক্তব্য রাখেন তিনি।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এস এম কামাল হোসেন, মির্জা আজম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, শ্রম সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সেলিম মাহমুদ, অর্থ সম্পাদক ওয়াসিকা আয়েশা খান, স্বাস্থ্য সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা, আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান, উপদফতর সম্পাদক সায়েম খানসহ অনেকে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত