শনিবার, ৩১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

ইলিশ উন্নয়নসহ একনেকে ১২৬৬ কোটি টাকার ৫ প্রকল্প অনুমোদন

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

ইলিশ উন্নয়নসহ একনেকে ৫ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক)। এগুলো বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ২৬৬ কোটি ১৩ লাখ টাকা। সরকারি তহবিল থেকেই এই অর্থ ব্যয় করা হবে।

মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা সচিব আসাদুল ইসলাম এবং ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) শামীমা নার্গীস।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘অপ্রয়োজনীয় রাস্তা নির্মাণ না করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, নিজের বাড়ির সামনে অপ্রয়োজনীয়ভাবে রাস্তা নির্মাণ বা প্রশস্তকরণ করার মানসিকতা বাদ দিতে হবে। কৃষিজমি রক্ষায় নতুন রাস্তার চেয়ে বিদ্যমান রাস্তা সংস্কারে জোড় দিতে হবে। এছাড়া ইলিশের উৎপাদন বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে খাঁচায় অন্যান্য মাছচাষের জন্য প্রশিক্ষণের তাগিদ দিয়েছেন তিনি।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের প্রতিশ্রুতি রয়েছে প্রত্যেক উপজেলায় টেকনিক্যাল স্কুল করা। সেজন্য ৪০টি উপজেলায় কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।’

এম এ মান্নান বলেন, ‘যারা বিদেশ থেকে ফেরত আসছেন তাদেরও প্রশিক্ষণ এবং অর্থ প্রণোদনা দেওয়া হবে। যাতে তারা আবারও বিদেশ গিয়ে বেশি আয় করতে পারবেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে পরিকল্পামন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্প পাস হওয়া মানে টাকা খরচ নয়। আমরা প্রকল্প চলমান সময়েও নজরদারি করছি। আইএমইডি আছে তারা কাজ করছে।’

এ সময় পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য আকন্দ বলেন, ‘বিশ্বের বেশিরভাগ পরিমাণ ইলিশ আমাদের এই অঞ্চলেই হয়। বাংলাদেশে উৎপাদন হয় ৬০ শতাংশ। নানা কারণে ইলিশ প্রজনন ও চলাচল ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সেজন্যই ইলিশ উন্নয়ন প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।’

একনেকে অনুমোদিত প্রকল্পগুলো

জামালপুর জেলার দিগপাইত-সরিষাবাড়ি- তারাকান্দি সড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৭৬ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। সীমান্ত এলাকায় বিজিবির ৭৩টি কম্পোজিট আধুনিক বর্ডার অবজারভেশন পোস্ট নির্মাণ প্রকল্পে খরচ হবে ২৩৩ কোটি ৫২ লাখ টাকা। ৮টি সরকারি শিশু পরিবারে ২৫ শয্যাবিশিষ্ট শান্তি নিবাস প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৩ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। এছাড়া ৪০টি উপজেলায় ৪০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও চট্টগ্রামে একটি ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি স্থাপন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হবে ৩৩৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। আর ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২৪৬ কোটি টাকা।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত