সোমবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

‘উন্নত চিকিৎসার জন্য ওয়াহিদাকে বিদেশে পাঠানোর প্রয়োজন নেই’

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

দুর্বৃত্তদের হামলায় আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর প্রয়োজন নেই, বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। নিউরো সায়েন্স হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা তার খুব ভালো চিকিৎসা দিচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ইউএনও ওয়াহিদার শারীরিক অবস্থার খোঁজ-খবর নিতে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, ‘ইউএনও ওয়াহিদা আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। আমার কাছে মনে হয়েছে তিনি এখন অনেক ভালো অবস্থায় আছেন। তার আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে আটজন ডাক্তার আড়াই ঘণ্টা সফলতার সঙ্গে অপারেশন করেছে। তার ডান দিকের অংশটা এখনো অবশ আছে। ডাক্তাররা বলেছেন ফিজিক্যাল থেরাপি এবং সময়ের সঙ্গে আস্তে আস্তে এটা ভালো হয়ে যাবেন।’

তিনি বলেন, ‘এখন রোগী যে পর্যায়ে আছে তাতে বাইরে পাঠানোর কোনো প্রয়োজনীয়তা নেই। ভবিষ্যতে যদি প্রয়োজন হয় তখন সেটা সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আমি নিজ চোখে দেখে আসছি, রোগী সুন্দর ব্যবস্থাপনায় আছে এবং সবকিছু ভালোভাবে চলছে। প্রয়োজনে রোগীর চিকিৎসায় যা দরকার সব দেওয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছি। অপারেশন পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা আগামীকাল শেষ হবে। এখনো ইনফেকশন দেখা যায়নি। আশা করা যায়, পুরোপুরি তিনি ভালো হবেন, ইকফেক্টেড (সংক্রমিত) হবেন না। দোয়া করি, ইনফেকশন যেন না হয়।’

প্রধানমন্ত্রী ইউএনও ওয়াহিদার চিকিৎসার সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখছেন জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এ রকম একটা জটিল পেশেন্টকে সফলতার সঙ্গে আমাদের নিউরো সায়েন্সে চিকিৎসা দেওয়ায় আমরা গর্বিত। হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর দীন মোহাম্মদ সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধান করছেন। আমরা গর্বিত যে, নিউরোসায়েন্স অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে অপারেশন ও চিকিৎসাটা করেছে।’

ওয়াহিদাকে তত্ত্বাবধানকারী অধ্যাপক জাহেদ হোসেন জানান, তিনি জ্ঞান হারানোর আগের ঘটনা মনে করতে পারছেন—এটা ভালো লক্ষণ। তাঁর জ্ঞানের মাত্রা শতভাগ ঠিক আছে। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘ওয়াহিদার হার্ট, রক্তচাপ, স্নায়ুতন্ত্র ঠিকমতো কাজ করছে। অক্সিজেন সেচুরেশন স্বাভাবিক আছে। তাঁর শরীরের ডান পাশ এখনো অবশ। এ জন্য তাঁকে ফিজিওথেরাপি দেওয়া হচ্ছে। ওয়াহিদা খানমের মাথায় এখনো ব্যথা আছে। তাঁর মাথায় অনেকগুলো আঘাত ছিল। এ কারণে ব্যথা থাকাটা স্বাভাবিক। মাথার ব্যথাটা কিছুদিন থাকবে, পরে ধীরে ধীরে কমে যাবে।’

উল্লেখ্য, বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে ইউএনও ওয়াহিদার সরকারি বাসভবনের ভেন্টিলেটর ভেঙে বাসায় ঢুকে ওয়াহিদা ও তার বাবার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। পরে ইউএনওকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (রমেক) নিয়ে ভর্তি করা হয়। এরপর তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে তাকে ঢাকায় আনা হয়। তিনি বর্তমানে রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) রাতে ৬ সদস্যের চিকিৎসক দল প্রায় দুই ঘণ্টার চেষ্টায় ইউএনও ওয়াহিদার মাথায় জটিল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করে। অস্ত্রোপচার শেষেই তাকে ৭২ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে রাখেন চিকিৎসকরা।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত