শনিবার, ২৩শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

‘বিদ্যুৎ ব্যবহারে মিতব্যয়ী হোন, সবসময় ভর্তুকি দেওয়া সম্ভব না’

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

বিদ্যুৎ ব্যবহারে দেশবাসীকে মিতব্যয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অনেক বেশি ভতুর্কি দিতে হচ্ছে আমাদের। কিন্তু এই ভর্তুকি সবসময় দেওয়া সম্ভব না। এটাও সবাইকে মাথায় রাখতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট ) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে ৩১টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন, ২টি পাওয়ার প্ল্যান্ট, ১১টি গ্রিড সাব-স্টেশন এবং ৬টি নতুন সঞ্চালন লাইন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। ভিডিও কনফারেন্সে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন জেলা প্রশাসক কার্যালয় সংযুক্ত ছিল এবং প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শুধু বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি ও বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছি না, পাশাপাশি সঞ্চালন ব্যবস্থাও করে যাচ্ছি। সেইসঙ্গে আমরা পল্লী বিদ্যুৎকেও ব্যাপকভাবে সম্প্রসারণ করে দিয়েছি। তারা নিজেরাই এখন বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারে, সঞ্চালনও করতে পারে, এমনকি বিদ্যুৎও দিতে পারে। সেই সুবিধাটাও আমরা তাদের জন্য দিয়ে দিয়েছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এইভাবে আমরা বহুমুখী পরিকল্পনার মাধ্যমেই বিদ্যুৎ উৎপাদন করে মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছি। বিদ্যুৎ উৎপাদনে খরচ কিন্তু অনেক বেশি হয়। বর্তমানে আমরা যেমন এলএনজি আমদানি করছি। কাজেই এত বেশি খরচের পরও আমরা এখনও ভর্তুকি দিয়ে যাচ্ছি। অর্থাৎ উৎপাদন খরচ যা হয়, তার চেয়ে কম পয়সার গ্রাহককে আমরা বিদ্যুৎ সরবরাহ করছি। সেক্ষেত্রে গ্রাহকদের কাছে অনুরোধ করব- আপনারা বিদ্যুৎ ব্যবহারের ক্ষেত্রে অবশ্যই মিতব্যয়ী হবেন, সাশ্রয়ী হবেন। অহেতুক বিদ্যুৎ অপচয় করবেন না।’

তিনি বলেন, ‘অহেতুক বিদ্যুৎ ব্যবহার না করা আপনাদের জন্যও লাভ। বিলটা কম উঠবে। তাই নিজেদের কথা চিন্তা করে, বিল যাতে কম ওঠে সেদিকে লক্ষ্য রেখে সবাই বিদ্যুৎ ব্যবহার করবেন। এটা আমার বিশেষভাবে অনুরোধ। কারণ আমাদের অনেক বেশি ভতুর্কি দিতে হচ্ছে। কিন্তু এই ভর্তুকি সবসময় দেওয়া সম্ভব না। এটাও সবাইকে মাথায় রাখতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখন যেহেতু আমরা উন্নয়নের জন্য ব্যাপক কর্মসূচি করছি। সেজন্য মানুষের অসুবিধাগুলো আমরা দূর করতে চাচ্ছি। মানুষের আর্থিক স্বচ্ছলতা যত বেশি আসবে, তখন আমরা যেটা চাইব মানুষ দিতে সক্ষম হবে। কিন্তু সেই সক্ষমতটা আগে আমাদের তৈরি করে দিতে হবে। তার জন্য আমি এই সুযোগ সুবিধাগুলো করে দিচ্ছি।’

এ সময় বিদ্যু বিভাগের সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। এদিন গণভবন প্রান্তে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব আহমেদ কায়কাউস। বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের সচিব সুলতান আহমেদ সূচনা বক্তব্য দেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শেষে উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন ঘোষণার পর দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়

Print Friendly, PDF & Email

মতামত