মঙ্গলবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

বঙ্গবন্ধু বুক কর্ণার: যেভাবে যুক্ত হয়েছিলেন আমিতাভ দেউরী

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিজস্ব প্রতিবেদক: ৬৫ হাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য বঙ্গবন্ধু বুক কর্ণার উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অভিযোগ উঠেছে অমিতাভ দেউরীর বিরুদ্ধে। “বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা” বইটিতে নিজেকে লেখক বলে দাবি করা হলেও এতে অমিতাভ দেউরীর কোন প্রবন্ধ নেই। বঙ্গবন্ধুর দুর্লভ আলোকচিত্র সাজানো পিক্টোরিয়া বইটি মূলত ছবি নির্ভর। যেখানে শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এবং ইতিহাসবিদ ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেনের প্রবন্ধ রয়েছে। 

বইটির তৃতীয় সংস্করণে অমিতাভ দেউরী নিজের মেধাস্বত্ত্ব খর্ব হয়েছে বলে গণমাধ্যমে অভিযোগ করলেও তার সত্যতা পাওয়া যায়নি। কারণ বঙ্গবন্ধু বুক কর্ণারে সরবরাহ করা বইটিতে তাকেই সম্পাদক হিসেবে প্রিন্টার্স লাইন ছাপানো হয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০১৮ সালের মার্চ মাসে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে সচিত্র পিক্টোরিয়াল বই প্রকাশের প্রস্তাব দেন জার্নি মাল্টিমিডিয়ার স্বত্ত্বাধীকারী নাজমুল হোসেন।মন্ত্রীর আগ্রহের পর অমিতাভ দেউরী এককালীন ৭ লক্ষ টাকার বিনিময়ে জার্নি সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়।

তবে “বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা” পান্ডুলিপি প্রণয়নে সম্পাদনা পর্ষদে ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, মাহফুজা খানম, ড. খন্দকার বজলুল হক, ড. নাসরীন আহমাদ, মাহবুব উদ্দীন আহমেদ, বীরবিক্রম এবং সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি তারিক হাসান শমীকে যুক্ত করেন জার্নি’র কর্ণধার নাজমুল হোসেন। সম্পাদনা পর্ষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বইটির প্রুফ, কম্পোজ এবং কালার কারেকশনের কাজ করেন সম্পাদক অমিতাভ দেউরী। বইটির নামকরণ, গবেষণা এবং সমন্বয়ের দায়িত্বে পালন করেন নাজমুল হোসেন। বঙ্গবন্ধুর ছবির ক্যাপশন লেখা এবং সম্পাদনা পর্ষদের মাধ্যমে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করেছেন তিনি। বইটির প্রচ্ছদ ও ডিজাইন করেছেন সব্যসাচী হাজরা।

“বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা” বইটির প্রথম সংস্করণে প্রকাশনায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নাম ছিলো। কিন্তু বইটি ছাপাতে মন্ত্রণালয় কোন অর্থব্যয় করেনি।তাই জার্নি’র উদ্যোগে স্পন্সর জোগাড় করে বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ ছাপানো হয়। যেখানে প্রকাশনায় জার্নি’র নাম যুক্ত হয়। ২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে বইটির আনুষ্ঠানিক মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরবর্তীতে কপিরাইট অফিসে আবেদন করার পর যাচাই বাছাইয়ের পর বইটির স্বত্ত্ব জার্নি’কে প্রদান করে কপিরাইট অফিস। এব্যাপারে জানতে চাইলে রেজিস্টার অব কপিরাইট জাফর রাজা চৌধুরী জানান, কপিরাইট আইনের ১৭ ধারা অনুযায়ী প্রণেতাই সৃজিত কর্মের প্রথম স্বত্ত্বের অধিকারী। যেহেতু মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কোন অর্থব্যয় করেনি এবং কোন চুক্তি সম্পাদন করেনি তাই আবেদনকারী কপিরাইট পেয়েছেন।

অমিতাভ দেউরীর অধিকার খর্ব করার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, সম্পাদকের অধিকার কপিরাইট অফিস ভালো বলতে পারবে। জার্নি’র পক্ষ থেকেই মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে বইটির পান্ডুলিপি তৈরী করে দেয়া হয়। কিন্তু ফান্ডের অভাবে আমরা বইটি ছাপাতে পারি নাই।বইটির উদ্যোক্তা জার্নি অর্থ জোগাড় করে ছাপানোর কাজ সম্পন্ন করে। পরবর্তীতে বই বিক্রির ২৩% অর্থ মন্ত্রণালয় পাবে তাদের সাথে এমন চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। তবে কোন অর্থব্যয় না করেই মন্ত্রণালয় আড়াই কোটির টাকার বেশি রয়্যালিটি পাচ্ছে।’

সম্পাদনা পর্ষদের সদস্য মাহাবুব উদ্দিন আহমদ, বীরবিক্রম বলেন, নাজমুল হোসেনের প্রস্তাবে আমি সানন্দে সম্পাদনা পরিষদে যুক্ত হয়েছিলাম। অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে কাজ করেছি। এর বাহিরে কাউকে দেখিও নাই, কাজও করি নাই।

অধিকার খর্ব হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে “বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা” বইটির সম্পাদক অমিতাভ দেড়রীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন উত্তর দেননি। তবে এরআগে তিনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন যে হারানো মেধাস্বত্ত্ব ফিরে পেতে তিনি আইনের দারস্থ হবেন।

জানতে চাইলে জার্নি মাল্টিমিডিয়ার প্রধান নির্বাহী নাজমুল হোসেন জানান, ‘অমিতাভ দেউরীকে ৭ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ওয়ার্ক ফর হায়ার ভিত্তিতে সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছিলাম। বইটি মৌলিক কোন সাহিত্য নয়। আমাকে টিম লিডার মেনেই অমিতাভ দেউরী কাজ করেছিলেন। সব প্রমাণ মেইলে আছে। কিন্তু হীন স্বার্থ চরিতার্থ করতে তিনি মেধাস্বত্ত্ব হারিয়েছেন বলে বানোয়াট অভিযোগ করছেন। বঙ্গবন্ধু বুক কর্ণারকে বানচাল করতেই তিনি পিনাকী রায়ের মতোই স্বাধীনতা বিরোধী পক্ষের মানুষ।’

উল্লেখ্য, সারাদেশে ৬৫ হাজার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য মোট ৬৪টি বই নির্বাচন করা হয়েছে। প্রথম দফায় আটটি বই ক্রয় করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। সংস্থার মহাপরিচালক করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় তার মতামত পাওয়া যায়নি। তবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে নিয়মের মধ্যেই সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত