সোমবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

‘২১ আগস্ট শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে না পেরে বিএনপি বলেছে দুর্ঘটনা’

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা নিয়ে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, হাওয়া ভবনের ছক অনুযায়ী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে পারেনি বলেই তারা ঘটনাটি দুর্ঘটনা বলছেন। খুনিদের নিখুঁত হত্যা পরিকল্পনা ভেস্তে যাওয়ায় তারা তাদের দৃষ্টিকোণ থেকে এটি দুর্ঘটনা মনে করতে পারে।

শনিবার (২২ আগস্ট) সকালে রাজশাহী সড়ক জনপথ, বিআরটিসি, বিআরটিএ কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স মতবিনিময় সভায় ওবায়দুল কাদের এ সব কথা বলেন। তিনি তার সরকারি বাসভবন থেকে সংযুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকার করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দেয়। গাড়ির আসন সংখ্যা অর্ধেক খালি রাখা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার শর্তে ভাড়া সমন্বয় করে এ সময়ের জন্য। শুরুতে কিছু পরিবহন প্রতিশ্রুতি মেনে চললেও এখন অনেকেই মেনে চলছে না। আসন খালি না রাখলে এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানলে যাত্রী সাধারণ অতিরিক্ত ভাড়া কেন দেবে? এ প্রেক্ষাপটে বিআরটিএ মালিক-শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট স্টোকহোল্ডারদের সঙ্গে মতবিনিময় করে কিছু সুপারিশ তৈরি করে। এ সকল সুপারিশ মন্ত্রণালয় কেবিনেট ডিভিশনে পাঠানো হচ্ছে। কীভাবে বা কোন কোন শর্তে পূর্বের ভাড়ায় ফিরে যেতে হবে এ সব বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত পাওয়া গেলে আমরা তা সকলকে অবহিত করব।’

করোনা শীঘ্রই চলে যাবে বা চলে যাচ্ছে এমন মনে করার কোনো যৌক্তিক কারণ নেই দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এমনভাবে স্বাস্থ্যবিধির প্রতি অবহেলা প্রদর্শন বিপর্যয়ের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে বের হলে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। আমাদের অভ্যাসের পরিবর্তন ঘটিয়ে তা স্বাস্থ্যবান্ধব করতে হবে। সংক্রমণ রোধে প্রতিরোধ ব্যবস্থায় অধিক মনোযোগী হচ্ছে সর্বোত্তম কৌশল।’

২১ আগস্ট হামলার ঘটনাকে দুর্ঘটনা উল্লেখ করে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি নেতারা দিবালোকের মতো সত্যকে বিকৃত করে বলছে, একুশে আগস্ট নাকি দুর্ঘটনা। ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় রাষ্ট্রযন্ত্রকে পরিকল্পিতভাবে ব্যবহার করে হামলা চালানো হয়েছিল। যা ছিল ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডেরই ধারাবাহিকতা। একুশে আগস্টে টার্গেট ছিল দেশরত্ন শেখ হাসিনা। মুফতি হান্নানসহ অন্যান্যদের বক্তব্য এবং দালিলিক প্রমাণ বেরিয়ে এসেছে কারা এর পেছনে মদদ দিয়েছে, কারা বৈঠক করেছে, ষড়যন্ত্র করেছে। এ হামলার মাস্টারমাইন্ড হাওয়া ভবন বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব সবাই জানত। তারা আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল। মুছে দিতে চেয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। সেদিন আল্লাহর রহমতে শেখ হাসিনা বেঁচে যান।’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘হতে পারে, হাওয়া ভবনের ছক অনুযায়ী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে পারেনি বলেই তারা দুর্ঘটনা বলছেন। খুনিদের নিখুঁত হত্যা পরিকল্পনা ভেস্তে যাওয়ায় তারা তাদের দৃষ্টিকোণ থেকে দুর্ঘটনায় মনে করতে পারে। তদন্তে বাধা দেওয়া, জজ মিয়া নাটক সাজানো, আলামত নষ্ট করাসহ পদে পদে বাধাদানের মাধ্যমে তাদের সংশ্লিষ্টতার অকাট্য প্রমাণ জাতির কাছে আজ স্পষ্ট।’

Print Friendly, PDF & Email

মতামত