শনিবার, ২৩শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

শেখ হাসিনা আছেন বলেই জঙ্গিরা মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি : কাদের

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এদেশের রাজনীতিতে হত্যা, সন্ত্রাস, ষড়যন্ত্র আর সাম্প্রদায়িকতার বিস্তার বিএনপির হাত ধরেই হয়েছে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা আছেন বলেই জঙ্গিরা আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি। জঙ্গিদের বিচারের আওতায় আনা হয়েছে এবং শক্ত হাতে বিচার হচ্ছে।

১৭ আগস্ট সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলা দিবস উপলক্ষে আজ সোমবার (১৭ আগস্ট) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা কোনো খুনিকে ইনডেমনিটি জারি করে বিচার থেকে বাঁচাননি, খুনকে জায়েজ করেননি। সন্ত্রাস রাজনীতি বিএনপির ঐতিহ্য। তাদের ক্ষমতার উৎস বন্দুকের নল। ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসার পর দেশের মানুষের ওপর তারা নির্যাতনের স্টিম রোলার চালিয়েছিল। ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নির্বিচারে হত্যা করেছে তারা। ১৭ আগস্ট এবং ২১ আগস্টের বোমা হামলা তৎকালীন সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত জঙ্গিদের পৃষ্ঠপোষকতা অব্যাহত রেখেছিল বলেই সারাদেশে ৫০০ স্থানে বোমা হামলার মতো ঘটনা ঘটে। দেশের মর্যাদা তাদের কাছে গুরুত্ব পায়নি।’

তিনি বলেন, ‘আগস্ট মানে আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ। বাঙালি জাতি তথা বিশ্ব ইতিহাসের কলঙ্কের দিন। এই মাসে আমরা হারিয়েছি আমাদের জাতির পিতা ও তার পরিবারের সবাইকে। এমন নৃশংস রাজনৈতিক ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে আর ঘটেনি। আবার এই মাসেই ১৭ আগস্ট ২০০৫ সালে মুন্সিগঞ্জ বাদে ৬৩ জেলার ৫০০ স্থানে বোমা হামলা করা হয়।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনা আছেন বলেই জাতির পিতা হত‌্যার বিচার হয়েছে। জাতি আজ কলঙ্কমুক্ত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একটি স্বাধীন দেশের রাষ্ট্রপতিকে হত‌্যা করা হয়েছে আবার সে হত‌্যার বিচার যেন করতে না পারে, সেজন‌্য ইনডেমনিটি দেয়া হয়েছে। পঞ্চম সংশোধনীর মাধ‌্যমে বিচারের পথ বন্ধ করে দিয়ে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে পাওয়া সংবিধানকে অবমাননা করা হয়েছে।

দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ মন্তব্য করেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অবিশ্বাসী জিয়ার স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ের কর্মকাণ্ড প্রমাণ করে। পাকিস্তানের এজেন্ট হয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন জিয়া। বিএনপিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অসত্য প্রমান করতে। বঙ্গবন্ধুসহ সকল হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা ও যড়যন্ত্রকারীদের বিচারের আওতায় আনার ও এদের সমর্থনকারীদের প্রতিহত করার আহ্বান জানান তি‌নি।

সভাপতিমণ্ডলির সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেন, বিএনপি তাদের বিভিন্ন সময় করা অপকর্ম উগ্রবাদীদের কাঁধে চাপিয়ে দিয়ে মিথ্যার ওপর ভর করে রাজনীতি করছে।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি বক্তব্য রাখেন।

দেশবিরোধী শত্রুদের ব্যাপারে সজাগ থেকে সকল যড়যন্ত্র মোকাবিলা করে নতুন প্রজন্মকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান বক্তারা।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত