শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ বা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে না খোলা রাখা হবে, সেই সিদ্ধান্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় নেবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। এ ছাড়া ধর্ম, শিল্প, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

আজ রোববার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ এবং দিকনির্দেশনা দিতে আয়োজিত এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ১৮টি মন্ত্রণালয়ের সচিব বা তাঁদের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাংবাদিকদের সভার বিভিন্ন সিদ্ধান্তের কথা জানান।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সভা থেকে শিল্প এবং শ্রম মন্ত্রণালয়কে শ্রমিকদের করণীয় বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বাস, ট্রেন বা নৌযানে চলাচলের সময় যাত্রীদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে বলা হয়েছে। যাত্রীরা নেমে যাওয়ার পর যানবাহন যেন জীবাণুমুক্ত করা হয়, সে জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কারও জ্বর থাকলে কোনোভাবেই যানবাহনে যাতায়াত না করতে বলা হয়েছে।

জনসমাগম এড়িয়ে চলতে বলছেন কিন্তু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গ্যাদারিং হয়, সে বিষয়ে আপনারা কী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবরা ছিলেন। তাদের আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হ্যান্ড ওয়াশের ব্যবস্থা করার জন্য বলেছি। আরেকটু বলেছি আজকে স্কুল ছুটি হওয়ার পর শিক্ষার্থীরা যে টেবিল-চেয়ার ব্যবহার করে সেগুলো মুছে পরিষ্কার রাখেন। জীবাণুমুক্ত করে রাখেন।’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সুপারিশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কেন করছে না- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এ বিষয়ে ক্লোজ ডোর আলোচনা হয়েছে। আপনারা অবজার্ভ করেন। এ সিদ্ধান্ত তো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নয়। এটা শিক্ষা মন্ত্রণালয় গ্রহণ করবে। নিরাপত্তাজনিত যা যা বিষয় রয়েছে আমরা আজকেও তাদের অবহিত করেছি।’

আপনারা সভা-সমাবেশে এমনকি মসজিদে নামাজ পড়তে যেতে নিরুৎসাহিত করছেন- কিন্তু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখছেন- এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যাওয়া না যাওয়ার বিষয়ে আমরা বলছি না, আমরা সতর্কতা অবলম্বনের জন্য বলছি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ না খোলা রাখবে সেটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিষয়। আমাদের পরামর্শ যতটুকু যা দেয়ার সেটা আমরা দিয়েছি। এটুকু আপনারা আস্থায় রাখেন।’

তিনি বলেন, ‘আমরা দেশের মানুষকে নিরাপদ রাখতে চাই। সেজন্য কাজ করছি। আমরা কারও ওপর কিছু চাপিয়ে দিতে পারব না।’

দেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়।

এই তিনজন সুস্থ হয়ে উঠেছেন বলে গতকাল শনিবার জানান সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা। গতকাল আইইডিসিআর জানায়, আরও দুজন ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশের কোনো উড়োজাহাজ বাংলাদেশে আসবে না বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইউরোপ থেকে বাংলাদেশে আসা ফ্লাইট বন্ধের এই নিষেধাজ্ঞা ৩১ মার্চ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। আজ রোববার মধ্যরাত থেকে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। এ ছাড়া বাংলাদেশ যেসব দেশের নাগরিকদের অন অ্যারাইভাল বা আগমনী ভিসা দিয়ে থাকে, তা ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত