শুক্রবার, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

এবার ইরানের ৫২ স্থানে হামলার হুমকি ট্রাম্পের

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

যুক্তরাষ্ট্রের কোনো নাগরিক অথবা স্থাপনায় হামলা চালালে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ৫২টি ইরানি স্থাপনায় পাল্টা আঘাতের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইরানের পক্ষ থেকে জেনারেল সোলেইমানি হত্যার বদলা নেওয়ার ঘোষণা আসার পর এ হুমকি দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

ট্রাম্প বলেন, ইরান যদি আমেরিকানদের ওপর বা যুক্তরাষ্ট্রের কোনো সম্পদ লক্ষ্য করে হামলা চালায়, তবে তেহরানের ৫২টি স্থানে ভয়াবহ হামলা চালানো হবে।

আল জাজিরা, রয়টার্সসহ একাধিক গণমাধ্যম জানিয়েছে, গত শুক্রবার ইরাকের বাগদাদ বিমানবন্দরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে রকেট হামলা চালিয়ে সামরিক কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় ‘উপযুক্ত সময়ে ও যথাস্থানে’ এই হত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার হুমকি দিয়েছে ইরান।

এরপর থেকেই দুই দেশের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা শুরু হয়েছে। সৃষ্টি হয়েছে যুদ্ধ-পরিস্থিতি। এর মধ্যেই এক টুইট বার্তায় ইরানকে হুমকি দিয়েছেন ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ইরানের ৫২টি স্থানকে টার্গেট করেছে। এর মধ্যে কিছু ইরানের প্রথম সারির এবং খুবই গুরুত্বপূর্ণ স্থান। এগুলো ইরানের সংস্কৃতি এবং ইরানিদের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। এসব স্থানে খুব দ্রুত ভয়াবহ হামলা চালানো হবে।’

যুক্তরাষ্ট্র আর কোনো হুমকি চায় না জানিয়ে ট্রাম্প বলেন, ১৯৭৯ সালের নভেম্বরে তেহরানে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাস থেকে ৫২ জন আমেরিকানকে জিম্মি করা হয়েছিল। তারা ৪৪৪ দিন বন্দী ছিলেন। ওই ৫২ জনের কথা স্মরণ করেই ইরানের ৫২টি স্থানকে টার্গেট করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এর আগে ইরানের রিভল্যুশনারি গার্ড কমান্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিতে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইসরাইলের গুরুত্বপূর্ণ ৩৫টি স্থাপনা টার্গেটের ঘোষণা দেয় ইরান। ইসরাইলের রাজধানী তেলআবিবও ইরানের সম্ভাব্য ২৫ লক্ষ্যবস্তুর মধ্যে রয়েছে। ইরানি বার্তা সংস্থা তাসনিমের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে রয়টার্স।

জেনারেল সোলেইমানিকে হত্যার ঘটনায় গতকাল শনিবার তার প্রথম জানাজা সম্পন্ন হয়। তার জানাজার কয়েক ঘণ্টা পরেই বাগদাদে কয়েকটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। রাজধানী বাগদাদে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনীর একটি ঘাঁটিতে দুটি রকেট হামলার ঘটনা ঘটেছে। অন্যদিকে বাগদাদের সুরক্ষিত গ্রিন জোনে মার্কিন দূতাবাসের কাছে আঘাত করেছে দুটি মর্টারের গোলা।

ইরাকি নিরাপত্তা সূত্র বলছে, এসব হামলায় কেউ হতাহত হয়নি। অপরদিকে ইরানের নেতারা কাসেম সোলেইমানির হত্যার প্রতিশোধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে উত্তেজনা কমানোর কোনো চেষ্টা না করে বরং হামলার হুমকি দিয়ে টুইট করেছেন ট্রাম্প।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত