সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

এখন সুষ্ঠু নির্বাচন হয় না প্রমাণ করতেই বিএনপি নির্বাচনে যায়: ফখরুল

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের অধীন নির্বাচন সুষ্ঠু হয় না তা প্রমাণ করতেই বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। এবার ঢাকার দুই সিটির নির্বাচনেও অংশ নিতে যাচ্ছে।

আজ বুধবার রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

২০১৪ সালের সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি। এরপর ২০১৮ সালের নির্বাচনে যায় তারা। আগামী ৩০ শে জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনও অংশ নিচ্ছে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা দলটি।

নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘২০১৪ সালের নির্বাচন হয়নি তা প্রমাণ করার জন্যই ২০১৮ সালে নির্বাচনে গিয়েছি। আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না তা প্রমাণ করার জন্য নির্বাচনে গিয়েছি।

তিনি বলেন, এখন অনেকে প্রশ্ন করছেন, ঢাকা সিটি নির্বাচনে গেলেন কেন? আমি বলতে চাই, আওয়ামী লীগের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না, এ কথা বারবার প্রমাণ করার জন্যই মেয়র নির্বাচনে গিয়েছি।

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, কমিশন নিজেই বলছে তারা সুষ্ঠু নির্বাচন করার যোগ্য নয়। এই সরকারকে সরাতে হবে। নিরপেক্ষ সরকার ও কমিশনের অধীনে নির্বাচন করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘পুলিশ, প্রশাসন বাদ দিয়ে দেখুন মানুষ কী বলে। মানুষ এখন পরিবর্তন চায়, নতুন সরকার দেখতে চায়, জনগণের প্রতিনিধিত্ব করে এমন সরকার দেখতে চায়। ’ তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি না হলে রাজনৈতিক সমাধান হবে না।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে তাবিথ আউয়াল এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের জন্য রাস্তায় নেমে ভোট চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব ছাত্রদলের নেতাদের উদ্দেশে বলেন, তোমরা ঘরে ঘরে যাও, পরিবর্তনের জন্য সবাইকে বলো তাবিথ ও ইশরাককে ভোট দিতে।

আগে ছাত্রদলের সমাবেশ খোলা কোনো স্থানে করতে পারলেও এ সরকারের কারণে তা করতে পারছেন না অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘এখান থেকেই উঠে দাঁড়াতে হবে। ছাত্রদের সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। তারাই পৃথিবীকে পাল্টে দিতে পারে। ছাত্রদের দিকেই বাংলাদেশের মানুষ তাকিয়ে আছে।’

সরকারের কড়া সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, বেগম খালেদা জিয়া শীতের মধ্যে অত্যন্ত কষ্টে আছেন। আমি গতকাল খবর পেয়েছি, হাসপাতালে তার একটি রুমহিটার দেয়ার জন্য নেয়া হয়েছিল। কিন্তু নির্মম এই সরকার সেই হিটারটাও অনুমতি দেয়নি।

দেশের জনগণ এ সরকারকে চায় না মন্তব্য করে ফখরুল বলেন, আজকে এ সরকারের নেতারা লম্বা লম্বা কথা বলেন। বন্দুক দিয়ে, পিস্তল দিয়ে গায়ের জোরে ক্ষমতায় বসে আছেন। জনগণের সরকার তো তারা নন। জনগণ তাদের ভোট দেয়নি। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি, রাস্তার মধ্যে ১০০ জনকে জিজ্ঞেস করেন, ৯০ জন বলবে, এ সরকারকে আমরা চাই না।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হকের ওপর হামলা ও অন্য ছাত্রদের মারধর করার প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, প্রতিরোধ করতে হবে, প্রতিরোধ ছাড়া বিজয় অর্জন হয় না। বিএনপির, খালেদা জিয়া বা তারেক রহমানের প্রয়োজনে নয়, দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষার প্রয়োজনে সবাইকে উঠে দাঁড়াতে হবে।

ভারত বৈষম্যমূলক আইন করেছে উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব জানান, ভারতের ছাত্ররা সে আইনের বিরুদ্ধে নেমে পড়েছে, হংকংয়ে ছাত্ররা আন্দোলন করছে। এ দেশে কোনো কিছু সম্ভব হয়নি ছাত্রদের অগ্রণী ভূমিকা ছাড়া।

ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন বলেন, আমরা মুখ দেখাতে পারি না কথাটা ঠিক নয়। বলতে পারেন, আমরা মাথা নত করিনি। এ সরকার মাথা নত করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখনো প্যারোলে মুক্তি নিয়ে আছেন। আমাদের নেত্রী কিন্তু প্যারোলে মুক্তি নেননি।

ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দীন আলম বলেন, আমরা আমাদের কথা রাখতে পারিনি। আজকে মানুষ ছাত্রদল নিয়ে হাসাহাসি করে, বিএনপি নিয়ে হাসে। কারণ আমরা আমাদের নেত্রীকে মুক্ত করতে পারিনি। মুখে আমরা অনেক কথাই বলি, তা বাস্তবে পরিণত করতে হবে। অন্যান্য দল আইন ভেঙে মিছিল সমাবেশ করতে পারে। বিএনপির জন্য কেন এতো আইন, এ আইন ভাঙতে হবে।

ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হাসান শ্যামলের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আকরামুল হক মিন্টু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত