রবিবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

ভুল বেশি বের হলে রাজাকারের তালিকা প্রত্যাহার: মন্ত্রী

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

রাজাকারের তালিকায় মুক্তিযোদ্ধার নাম আসায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি বলেছেন, ভুল-ভ্রান্তি বেশি বের হলে তালিকা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের কাছে মন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, একাত্তরে প্রস্তুত করা তালিকাটিতে পাকিস্তানি বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের নাম সংযোজন করে থাকতে পারে।

মন্ত্রী বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে যে তালিকা পেয়েছি, হুবহু তা প্রকাশ করেছি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও সে সময়ের সরকারি রেকর্ড দিয়েছে, নতুন তালিকা করেনি।

মোজাম্মেল হক বলেন, ‘১৯৭১ সালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রস্তুতকৃত রাজাকারদের তালিকা মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় থেকে হুবহু প্রকাশ করা হয়েছে। এ তালিকা আগেই তৈরি করে রেখে গেছে। সেখানে কোনো ইল মোটিভ থাকতে পারে, উদ্দেশ্যমূলক হতে পারে। যেভাবে আছে, সেভাবে তুলে ধরা হয়েছে। আমরা এটা এডিট করি নাই, দাঁড়ি-কমা, সেমিকোলন চেঞ্জ করি নাই। আমার ধারণা, প্রথম যারা এ তালিকা প্রস্তুত করেছে, তারা হয়তো চেয়ারম্যান মেম্বারের কাছ থেকে নিয়েছে। তখন অনেকের নাম চাপের মুখে দিয়ে দেয়া হয়েছে। তারাও হয়তো এ বিষয়ে জানে না।’’

‘আমরা অত্যন্ত বিনয়ের সঙ্গে বলছি, এই তালিকা আমরা তৈরি করি নাই। জাতির দাবি ছিল, তাই প্রকাশ করেছি। আমি স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে তৈরি করি নাই। দুঃখ প্রকাশ করা ক্ষমা চাওয়ার মধ্যে তো কোনো পার্থক্য নাই। নিঃসন্দেহে এটা ক্ষমার চোখে দেখবেন।’ যোগ করেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, ‘যাদের নাম অন্যায়ভাবে এসেছে সেজন্য দুঃখ প্রকাশ করে তাদের নাম প্রত্যাহার করে নেব। আর যদি এ ভুলের পরিমাণ অনেক বেশি হয়, তাহলে পুরো তালিকা প্রত্যাহার করে নতুন তালিকা প্রকাশ করব। এ বিষয়ে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেব।’

তিনি বলেন, ‘আমি নিজে একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমার নাম যদি রাজাকারের তালিকায় আসত, আমি যে কষ্ট পেতাম, তারাও সে কষ্ট পেয়েছে যারা প্রকৃত পক্ষে রাজাকার ছিলেন না। আমি সেজন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত। এখানে আমার কোনো হাত ছিল না। যা পেয়েছি, তাই প্রকাশ করেছি। এখন আমাদের দৃষ্টিতে যদি আসে বা কেউ লিখিতভাবে আবেদন করেন যে উনারা উনারা ছিলেন না, তাহলে আমরা যাচাই-বাছাই করে তাদের নাম তালিকা থেকে বাদ দিয়ে দেব।’

গত রোববার ১০ হাজার ৭৮৯ রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে থাকা তালিকাটি প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়। এই তালিকায় অনেক মুক্তিযোদ্ধার নাম ঢোকায় তা নিয়ে সমালোচনাও শুরু হয়েছে।

মোজাম্মেল হক বলেন, ‘ভুলের দায় এড়াতে পারি না। যেসব অভিযোগ পাব, যাচাই করে সেসব নাম প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। ভবিষ্যতে তালিকা প্রকাশের আগে যাচাই-বাছাই করে পরে প্রকাশ করা হবে। বর্তমান তালিকায় ভুল-ভ্রান্তি বেশি থাকলে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে।’

Print Friendly, PDF & Email

মতামত