রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

আব্বা বলতেন, আমাকে কি বাক্সবন্দী হয়ে স্বাধীন করা দেশে যেতে হবে: খোকাপুত্র ইশরাক

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকার মেয়র সাদেক হোসেন খোকার জানাজার আগে আবেগঘন বক্তৃতা দিয়েছেন তার বড় ছেলে প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন। বাবার স্মৃতি রোমন্থন করে ইশরাক বলেন, প্রায় সময়ই আব্বু বলতেন- ‘যেই বাংলাদেশ নিজ হাতে স্বাধীন করেছি, সেই দেশে আমাকে কি বাক্সবন্দি হয়ে ফিরতে হবে…।’ শেষ পর্যন্ত বাবার কথাই সত্যি হলো। তাকে দেশে আনা হলো, তবে সুস্থ অবস্থায় নয়, একেবারে কফিনে মুড়িয়ে বাক্সবন্দি করে। এ কথা বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন খোকার ছেলে ইশরাক।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে জানাজার আগমুহূর্তে সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন ইশরাক। ইশরাকের বক্তৃতার সময় খোকার রাজনৈতিক সহকর্মীদের মধ্যে অনেককেই কাঁদতে দেখা গেছে।

তিনি বলেন, আমি যেদিন নিউইয়র্ক গেলাম সেদিন বাবা শেষ কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন তার জানাজা যেন দেশে হয়। আমি সরকারকে ধন্যবাদ জানাই আমার বাবার মরদেহ দেশে আনতে সহযোগিতা করার জন্য।

ইসরাক বলেন, বাবা আমাকে বলেছিলেন, আমি বাক্সবন্দি হয়ে দেশে যাবো। ঠিকই তিনি বাক্সবন্দি হয়ে এলেন। এটা আমি কখনও ভুলতে পারবো না।

প্রথমবারের মতো জাতীয় সংসদ এলাকায় পা রেখেছেন উল্লেখ করে ইসরাক হোসেন বলেন, প্রথমবার সংসদে পা রেখেছি আমার বাবার মরদেহ নিয়ে। যদিও আমার বাবা চারবার সংসদ সদস্য হয়ে এসেছিলেন।

তিনি বলেন, আমার বাবাকে আপনারা শ্রদ্ধা জানাতে এখানে এসেছেন তাই সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানাই। আপনাদের এখানে উপস্থিতি প্রমাণ করে বাবার সবার সঙ্গে সুসম্পর্ক ছিল। আপনাদের ধন্যবাদ।

সাদেক হোসেন খোকার দুই ছেলে ইসরাক হোসেন ও ইসফাক হোসেন সংসদ ভবনের জানাজায় উপস্থিত ছিলেন। বেলা সোয়া ১১ টায় জাতীয় সংসদ প্লাজায় তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজায় সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা তোফায়েল আহম্মেদ, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, সাবেক চিফ হুইপ আসম ফিরোজ, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন, ওয়ার্কার্স পাটির সভাপতি রাশেদ খান মেমন, সাবেক স্বরাষ্ট্রপ্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু, সাবের হোসেন চৌধুরী, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহিম, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, অলি আহমদ, আবদুল মঈন খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জানাজা শেষে বিরোধীদলের পক্ষে জাপা মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা শ্রদ্ধা জানান। এরপর কর্নেল অলি আহমদ, বিএনপির সংসদ সদস্যরা, উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম, বিএনপির ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের নেতৃত্বে বিএনপির স্থায়ী কমিটি, ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টারা শ্রদ্ধা জানান৷

ক্যানসারে আক্রান্ত খোকা নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৪ নভেম্বর মারা যান। ৭ নভেম্বর সকালে তার মরদেহ দেশে আনা হয়। ২০১৪ সাল থেকে চিকিৎসার জন্য তিনি নিউইয়র্কে ছিলেন।

চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য, দু’বারের মন্ত্রী ও ২০০২ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত