রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

নতুন করে ক্রিকেটারদের ১৩ দফা দাবি

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

আন্দোলনরত ক্রিকেটাররা সাংবাদিক সম্মেলনে কোয়াব কর্মকর্তাদের পদত্যাগ ও প্রফেশনাল ক্রিকেট অ্যাসোশিয়েশন গঠনসহ ১৩ দফা দাবি উত্থাপন করেছে। এ দাবিগুলো তাদের পক্ষ থেকে তাদের আইনজীবী উত্থাপন করেছেন।

বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় গুলশানের একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন ডাকেন আন্দোলনরত ক্রিকেটাররা। নিজেদের বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের মুখপাত্র হিসেবে কথা বলেন বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। তাকে ক্রিকেটাররাই নিয়োগ দিয়েছেন বলে জানা যায়।

দাবিগুলো হলো-

১। কোয়াব কর্মকর্তাদের পদত্যাগ ও প্রফেশনাল ক্রিকেট অ্যাসোশিয়েশন গঠন

২। ক্রিকেটারদের সংখ্যা ৩০ জন করতে হবে।

৩। ঢাকা লিগের দলবদল পুরনো পদ্ধতিতে হতে হবে

৪। সাপোর্ট স্টাফদের বেতন বাড়াতে হবে

৫। বাৎসরিক ক্রীড়াসূচি বাস্তবায়ন করতে হবে

৬। নারী ক্রিকেটেও একই সংস্কার করতে হবে

৭। বিপিএলে দেশি-বিদেশি ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিকের ব্যবধান কমাতে হবে

৮। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের প্রতি ম্যাচ ফি ১ লাখ টাকা হতে হবে

৯। ভ্রমণভাতা বাড়ানো,

১০। বিভাগীয় পর্যায়ে অনুশীলনের সুযোগ বাড়ানো

১১। আন্তর্জাতিক মানের বল দিয়ে স্থানীয় ম্যাচ আয়োজন

১২। প্রথম ও দ্বিতীয় বিভাগ লিগের দুর্নীতি বন্ধ করা

১৩। স্থানীয় কোচদের প্রাধান্য দেওয়া

এ সময় তিনি জানান, আমি ডাক, কুরিয়ার এবং ইমেইলের মাধ্যমে বাংলাদেশের পেশাদার ক্রিকেটারদের প্রতিনিধি বা মুখপাত্র হিসেবে ১৩ দফা দাবি সম্বলিত চিঠি পাঠিয়েছি। আমাদের প্রথম দাবি হলো কোয়াবের দায়িত্বে যারা আছেন তাদের পদত্যাগ করতে হবে। আমাদের আন্দোলন কারও বিরুদ্ধে নয়। কোয়াবের দায়িত্বে থাকারাই বোর্ডের দায়িত্বে আছেন। তারা পেশাদার ক্রিকেটারদের স্বার্থে কথা বলছেন না। প্রতি বছর নতুন করে নির্বাচন করতে হবে।

তিনি আরও জানান, ঘরোয়া ক্রিকেট আগের মতো আগের অবস্থায় আনতে হবে। ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক নিয়ে অনেক আলোচনা আছে। আমরা চাই আগামীতে যেন বাজারমূল্য হিসেবে ক্রিকেটারদের ভাবা হয়। বিপিএলে বিদেশি ক্রিকেটাররা অনেক বেশি অর্থ পাচ্ছে, সেভাবে দেশি পারফর্মাররা অর্থ পাচ্ছে না। এই বৈষম্য দূর করতে হবে। কোচ, গ্রাউন্ডসম্যানদের বেতন বাড়াতে হবে। আমি শুনেছি কদিন আগেই ১৬ জন গ্রাউন্ডসম্যান পদত্যাগ করেছেন। দেশের এই শ্রমবাজারে বেতন না বাড়ানোয় তারা চাকুরি ছেড়ে দিয়েছেন। কোচিং স্টাফে নতুন আসা ড্যানিয়েল ভেট্টরি সাড়ে তিন হাজার ডলার দৈনিক বেতন পাচ্ছেন। সেখানে আমাদের দেশিয় কোচরা সেভাবে পারিশ্রমিক পাচ্ছেন না।

ক্রিকেটারদের মুখপাত্র হিসেবে ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান যোগ করেন, ঘরোয়া লিগের সংখ্যা, ম্যাচের সংখ্যা বাড়াতে হবে। বিপিএলে সবাই অংশ নিতে পারে না। তাই ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি আরও বাড়াতে হবে। বোর্ডের যে ক্যালেন্ডার ইয়ার আছে সেভাবে খেলা মাঠে গড়াচ্ছে না। এটা নিয়ে কাজ করতে হবে। ঘরোয়া লিগ ঠিক সময়েই মাঠে গড়ানোর ব্যবস্থা করতে হবে। মোটা দাগে ক্যালেন্ডার অনুযায়ী সূচি মানতে হবে।

শেষ দিকে ক্রিকেটারদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসা এই আইনজীবী জানান, আমি শুনেছি ক্রিকেটারদের পাওনা গুলো ঠিক মতো দেওয়া হয় না। বিপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজি কিংবা ক্লাব গুলোকে এটা মানতে হবে। আরেকটা ব্যাপার শুনেছি, বিদেশি ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক দুটির বেশি লিগে ক্রিকেটারদের খেলতে দেওয়া হয় না। ভালো ক্রিকেটারদের চাহিদা থাকলে কেন তারা খেলতে পারবে না? এই নিয়মটি ঠিক করতে হবে। তবে, জাতীয় দলের অনুশীলন কিংবা খেলা থাকলে সেটা অন্য জিনিস। ক্রিকেটারদের জাতীয় দলের প্রতি কমিটমেন্ট ঠিক থাকলে তাদের বাইরের লিগে খেলতে দিতে হবে। নারী ক্রিকেটাররা দেশের জন্য ভালো করেছে। তাদের জন্যও সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে হবে। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

গত সোমবার (২১ অক্টোবর) মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে জমায়েত হয়ে ধর্মঘটের ডাক দেন সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটাররা। দ্রুত সমাধানের দাবিতে তারা তুলে ধরেন ১১ দফা দাবি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত খেলবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন ক্রিকেটাররা।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত