শুক্রবার, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

আবরার হত্যা মামলা: চার্জশিট দেয়ার পরই দ্রুত নিষ্পত্তির ব্যবস্থা

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার চার্জশিট দেয়ার পর দ্রুত নিষ্পত্তির ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ জন্য প্রসিকিউশন টিম প্রস্তুত করা হচ্ছে।

বুধবার (১৬ অক্টোবর) সচিবালয়ে তার দফতরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাকে বলেছেন, আবরার হত্যা মামলায় যেই মুহূর্তে অভিযোগপত্র দেয়া হবে, তখন থেকে মামলাটাকে দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য যেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন সেসব ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। আমি এ ব্যাপারে ইতোমধ্যেই প্রসিকিউশন সার্ভিসকে এই মামলা হ্যান্ডেল করার জন্য তৈরি হওয়ার নির্দেশ দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘একটা ফৌজদারি মামলার প্রথম কাজ হচ্ছে এজাহার দিয়ে শুরু হয়। এরপর তদন্ত শুরু হয়। আপনারা জানেন যে, আবরার হত্যা মামলার তদন্ত শুরু হয়ে গেছে। আসামিরা অনেকেই গ্রেফতার হয়েছেন এবং অনেকে হত্যাকাণ্ড বিষয়ে তাদের স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন। এই তদন্ত কিন্তু চলছে। সম্প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তদন্ত শেষ হলেই কিছুদিনের মধ্যে অভিযোগপত্র দেয়া হবে।’

অভিযোগপত্র দেয়া হলেই দায়িত্ব বর্তাবে আদালতের এবং প্রসিকিউশন সার্ভির ওপর জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এ দায়িত্ব দ্রুত পরিচালনার জন্য আমরা একটা টিম গঠন করেছি। সে হিসেবেই অভিযোগপত্র দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রসিকিউশন টিমকে মামলা রিসিভ করার জন্য আমি প্রস্তুত করছি। এ মামলা পরিচালনার জন্য একটা পৃথক প্রসিকিউশন টিমও হবে।’

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আপনারা সব সময় বলেন এটার ব্যাপারে আইন নেই, আইন থাকলেও পরিবর্তন করতে হবে। র‌্যাগিং কথাটার জন্য হয়তো আইন নেই, র‌্যাগিংয়ের মাধ্যমে যদি কোনো অপরাধ করা হয়, যদি থাপ্পড়ও দেওয়া হয় সেটাও কিন্তু পেনাল কোডে অপরাধ হিসেবে ধারা ৩২৩ এ শাস্তিযোগ্য।

‘র‌্যাগিংয়ের কথাগুলো এখন উঠে আসছে- আপনাদের অনুরোধ করবো যারা র‌্যাগিংয়ের ভিকটিম তাদের উৎসাহ দেবেন তারা যেন নালিশ করে। নালিশ করলে আমাদের যথেষ্ট আইন রয়েছে যেগুলোর আওতায় র‌্যাগিংয়ের মাধ্যমে করা অপরাধ আমরা বিচার করতে পারবো। নিশ্চয়ই আমরা বিচার করবো, বিচারিক প্রক্রিয়া হচ্ছে নালিশ করতে হবে।

তিনি বলেন, প্রচলিত আইনেই এ বিচার করা হবে। সব আইন আদালতে এলেই সমাধান হবে তা নয়, পাশাপাশি ইন হাউজ সিস্টেম তৈরির পাশাপাশি এর উন্নয়নও করতে হবে। সেখানে নালিশ করলে প্রতিকার হবে এবং নালিশ করলে আর র‌্যাগিং হবে না। এরকম কমপ্লেইন সিস্টেম গঠন করার পরামর্শও দেন তিনি।

বুয়েটের ইলেকট্রিক অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে গত ৭ অক্টোবর বুয়েট শাখার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পিটিয়ে হত্যা করে।

পরে আবরারের বাবা রাজধানীর চকবাজার থানায় ছাত্রলীগের ১৯ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত