শনিবার, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

মাদক ও অস্ত্র মামলায় সম্রাট ১০ দিনের রিমান্ডে

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

ক্যাসিনোকাণ্ডে আলোচিত ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী ওরফে সম্রাটের ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

অস্ত্র ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে রমনা থানার পৃথক দুই মামলায় ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত আজ মঙ্গলবার দুপুরের দিকে শুনানি নিয়ে সম্রাটের এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

একই সঙ্গে মাদক মামলায় যুবলীগের এই শাখার বহিষ্কৃত সহসভাপ‌তি এনামুল হক আরমানকে পাঁচদিনের রিমান্ড দেয়া হ‌য়ে‌ছে।

দুই মামলায় সম্রাটকে ১০ দিন করে মোট ২০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছিল পুলিশ।

শুনানির জন্য সম্রাটকে আজ দুপুর পৌনে ১২টার দিকে প্রিজন ভ্যানে করে কারাগার থেকে ঢাকার আদালতে হাজির করা হয়। রিমান্ড শুনানির আগে তাঁকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের হাজতখানায় রাখা হয়।

রিমান্ড শুনানির জন্য সম্রাটকে আজ আনা হবে জেনে তাঁর সমর্থকেরা আদালত প্রাঙ্গণে জড়ো হন। তাঁরা সম্রাটের পক্ষে স্লোগান দেন।

সম্রাটের রিমান্ড শুনানিকে কেন্দ্র করে আদালত প্রাঙ্গণে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়।

গত ৯ অ‌ক্টোবর সম্রা‌টের রিমান্ড আবেদনের ওপর শুনানির কথা ছিল। কিন্তু অসুস্থ হয়ে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালে ভর্তি থাকায় তাকে আদালতে হাজির করা হয়নি। তাই রিমান্ড শুনা‌নির জন্য সে‌দিন আদালত মঙ্গলবার দিন ধার্য ক‌রেন।

এদিকে ওই দিনই এনামুলক হক আরমানকেও মাদক মালায় গ্রেফতার দেখা‌নো হয়ে‌ছে। তাকেও মঙ্গলবার কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়।

সম্রাটকে গত ৬ অক্টোবর তাঁর এক সহযোগীসহ কুমিল্লা থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। পরে সম্রাটকে নিয়ে তাঁর কাকরাইলের কার্যালয়ে অভিযান চালায় র‍্যাব। তাঁর কার্যালয়ে ক্যাঙারুর দুটি চামড়া, মাদকদ্রব্য ও অস্ত্র পাওয়া যায়।

ক্যাঙারুর চামড়া পাওয়ার ঘটনায় র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত সম্রাটকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন। এ ছাড়া মাদকদ্রব্য ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় সম্রাটের বিরুদ্ধে রমনা থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত