শনিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

দাবি মেনে নেওয়ার পরও বুয়েটে আন্দোলন অযৌক্তিক : প্রধানমন্ত্রী

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা ইস্যুতে শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নেওয়ার পরও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে মহিলা শ্রমিক লীগের দ্বিতীয় কেন্দ্রীয় সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। সর্বশেষ ২০০৯ সালে মহিলা শ্রমিক লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এরপর প্রায় একযুগ পর এই সংগঠনের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ।

এর আগে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম এই সংগঠনের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘অপরাধীর কোনো পরিচয় নেই। যে অপরাধের সঙ্গে জড়াবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে সরকার। ’

এ সময় বুয়েট শিক্ষার্থীদের ১০ দফা দাবি মেনে নেওয়ার পর আন্দোলনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আবরার হত্যার ইস্যুতে শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নেওয়ার পরও আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার যৌক্তিকতা নেই। ’

অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারীকে বাদ দিয়ে কোনোভাবেই একটি সমাজ গঠন করা সম্ভব নয় বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। এ সময় নিজেদের অধিকার নারীদের নিজেদের আদায় করে নিতে হবে বলেও সচেতন করেন তিনি।

বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘খেলাধুলায় মেয়েরা আমাদের কম যাচ্ছে না। আপনারা দেখেছেন যে ১৫ বছরের নিচে মেয়েরা যে ফুটবল খেলছে, তারা তো খুব ভালো করছে। হয়তো বলা যায়, তারা চ্যাম্পিয়নও হয়ে যেতে পারে আঞ্চলিক ফুটবল প্রতিযোগিতায়।’

সরকার সারা দেশে কর্মজীবী নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের নারীরা সুযোগ পেলে নিজেদের উন্নয়নের পাশাপাশি দেশের জন্যও কাজ করতে পারে। এক সময় নারীদের জন্য সব ক্ষেত্রে বৈষম্য ছিল। আওয়ামী লীগ ৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর নারীদের জন্য সব ক্ষেত্রে শীর্ষ পর্যায়ে দায়িত্ব পালনের সুযোগ তৈরি করে। ’

মহানবী হযরত মুহম্মদ (সা.)-এর স্ত্রী খাদিজা (রা.)-এর উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, প্রথম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন একজন নারী। তিনি মহানবীর (সা.) স্ত্রী হয়েও ব্যবসা-বাণিজ্য করতেন। তাই ধর্মের নামে নারীদের ঘরে আটকে রাখার কোনো সুযোগ নেই।

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ হাসিনা বলেন, প্রথম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন কে? ইসলাম ধর্ম প্রচারে প্রথম সহায়তা কে করেছিলেন? তিনি বিবি খাদিজা (রা.)। মহানবী (রা.) যখন ইসলাম ধর্ম প্রচার করছিলেন, তখন তো তিনিই এগিয়ে এসেছিলেন। তিনি সব সম্পদ দিয়ে দিলেন ধর্ম প্রচারের জন্য। সেই বিবি খাদিজা (রা.) ব্যবসা-বাণিজ্য করতেন। উটে চড়ে ব্যবসার জন্য দেশে দেশে যেতেন। কাজেই মেয়েদের ধর্মের নামে ঘরে আটকে রাখার কোনো যৌক্তিকতা নেই।

শিক্ষা, চাকরি, কর্মসংস্থানসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীদের এগিয়ে নিতে সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে বলে উল্লেখ করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। তিনি বলেন, কোনো সমাজের অর্ধেক জনগোষ্ঠী যেখানে নারী, সেখানে নারীদের বাদ দিয়ে কোনোভাবেই সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। আওয়ামী লীগ সারাদেশের সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চায়। তাই আমরা শুরু থেকেই সবসময় নারীদের উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি, কাজ করে যাচ্ছি।

জ্ঞানপাপীরা ভারতের কাছে নদী বিক্রির অভিযোগ তুলছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘জিয়া, এরশাদ এবং খালেদা জিয়া সরকার ভারতের কাছ থেকে কোনো ক্ষেত্রেই ন্যায্য হিস্যা আদায় করতে পারেনি। মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি করতে জ্ঞানপাপীরা ভারতের কাছে নদী বিক্রির অভিযোগ তুলছে। ’

মহিলা শ্রমিক লীগের সভাপতি রওশন জাহান সাথির সভাপতিত্বে সংগঠনটির এই জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত