বৃহস্পতিবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

বঙ্গবন্ধুর কথা ষোলআনা অমান্য করা হচ্ছে: ড. কামাল

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা ষোলআনা অমান্য করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শনিবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘এ দেশে স্বৈরশাসন থাকবে, উনি (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) কোনো দিনও ভাবতে পারেননি। উনি চেয়েছিলেন, এ দেশে গণতন্ত্র থাকবে— নির্ভেজাল গণতন্ত্র। নামকাওয়াস্তে গণতন্ত্র নয়।’

‘তিনি গণতন্ত্রের ব্যখ্যা দিয়ে গেছেন। গণতন্ত্র মানে সকল স্তরে জনগণ ক্ষমতার মালিক। যেখানে যেখানে সাংবিধানিক ক্ষমতা প্রয়োগ করা হবে—কেন্দ্রে, জেলায়, ইউনিয়নে, স্থানীয় পর্যায়ে। যিনিই রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা প্রয়োগ করবেন, তিনি হবেন জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধি’— বলেন ড. কামাল হোসেন।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচিত মানে সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত। কিন্তু খুবই দুঃখজনক বিষয় হলো- নির্বাচন পদ্ধতিটাকে উল্টে দেওয়া হয়েছে। টাকা-পয়সা, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপপ্রয়োগের মধ্য দিয়ে এখন একটা রায় দিয়ে দেওয়া হয়। মানুষ যাকে ভোট দিতে চায় না, সে সামনে এসে বলে, আমি নির্বাচিত, আমরা রাষ্ট্র ক্ষমতার মালিক।

‘অর্থাৎ বঙ্গবন্ধুর কথাটাকে ষোলআনা অমান্য করা হচ্ছে। এরই শিকার আমরা বার বার হয়েছি। আবার আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আমরা মুক্তও হয়েছি। বিশেষ করে যিনি মনে করেছিলেন, উনি (এরশাদ) এ দেশে ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকবেন। উনাকে তো আমরা সরালাম সফল আন্দোলন করে, ঐক্যবদ্ধ হয়ে’— বলেন ড. কামাল হোসেন।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা। কোনো ব্যক্তি বা দলের পিতা নন। কিন্তু আজকে তার নাম ব্যবহার করে তার আদর্শ পরিপন্থী কাজ করা হচ্ছে। দেশের মালিক যে জনগণ, সেটা অস্বীকার করা হচ্ছে। অথচ বঙ্গবন্ধুর যে আদর্শ, তার মূল কথা ছিল দেশের মালিক হবে জনগণ। কোনো ব্যক্তি, দল বা গোষ্ঠী দেশের মালিক নয়।’

সংকট নিরসনে আবারও সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘ঘরে-ঘরে, গ্রামে-গ্রামে গিয়ে বলুন, বঙ্গবন্ধুর শিক্ষাটা ভুলে গেলে চলবে না। আমরা ঐক্যবদ্ধ হবো। কোনো ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে নয়, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে কেন্দ্র করে আমরা ঐক্যবদ্ধ হব।’

ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক আবু সাঈদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট মহসীন রশীদ, মেসবাহ উদ্দীন আহমেদ, মোকাব্বির খান, সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়াসহ অনেকেই।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত