বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

ঢাকা ছাড়ছে মানুষ, শুরুতেই শিডিউল বিপর্যয় ট্রেনে

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

ঈদযাত্রার মূল স্রোত শুরু হয়েছে। গ্রামের পথে ফিরতে শুরু করেছেন মানুষ। সরকার-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী অনেকেই ঈদের আগের শেষ কর্মদিবসে অফিসে হাজিরা দিয়েই বেড়িয়ে পড়েছেন বাড়ির পথে। সব মিলিয়ে রাজধানীর জনস্রোত এখন গাবতলী, সায়দাবাদ ও মহাখালী বাস টার্মিনাল; সদরঘাট নদীবন্দর আর কমলাপুর রেলস্টেশনে। এর মধ্যে শুরুতেই শিডিউল বিপর্যয় দেখা দিয়েছে রেলে ঈদযাত্রায়। ঢাকা থেকে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের কোনো ট্রেনই নির্ধারিত সময়ে রওনা দিতে পারছে না।

বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) সকালে কমলাপুর রেল স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, দিনের প্রথম ট্রেন রাজশাহীগামী ধুমকেতু এক্সপ্রেস কমলাপুর ছেড়েছে নির্ধারিত সময়ের প্রায় তিন ঘণ্টা পর। নীলফামারীগামী নীলসাগর, রংপুরগামী রংপুর এক্সপ্রেস ও খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেসের কোনোটিই ছাড়তে পারেনি নির্ধারিত সময়ে।

সকালে কমলাপুর স্টেশনে এসে সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যেতে চাওয়া যাত্রীরা। গতকাল ট্রেনের কিছুটা বিলম্ব হয়েছিল। তবে আজ ব্যাপক বিলম্বে ছেড়ে যাচ্ছে ট্রেন।

ট্রেনগুলো সময়মতো ছাড়তে না পারায় কমলাপুর রেলস্টেশনে এখন মানুষের উপচে পড়া ভিড়। নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই যাত্রীরা চলে এসেছিলেন কমলাপুর রেল স্টেশনে। তিন-চার ঘণ্টাতেও ট্রেন না ছেড়ে যাওয়ায় সবগুলো ট্রেনের যাত্রীতে স্টেশন লোকে লোকারণ্য।

স্টেশন কর্তৃপক্ষ বলছে, ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে ৫৫টি আন্তঃনগর ও মেইল ট্রেনে ছেড়ে যাবে বৃহস্পতিবার। এসব ট্রেনে ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ ঢাকা ছাড়বেন। ঈদযাত্রায় যাত্রীর চাপ অনেক বেশি থাকায় যাত্রী ওঠানামায় সময় নষ্ট হচ্ছে বলে দাবি তাদের।

চিলাহাটীগামী নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী হাবিবুর রহমান বলেন, আজকের টিকিট সংগ্রহের জন্য গত ৩০ জুলাই ১৪ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। অনেকটা যুদ্ধ করে আজকের কাঙ্ক্ষিত টিকিট পেয়েছিলাম, কিন্তু আজ সময়মতো স্টেশনে উপস্থিত হয়ে জানতে পারলাম ট্রেন আড়াই ঘণ্টা লেট। সঙ্গে মা, স্ত্রী, ছোট ছোট সন্তান রয়েছে। একে দীর্ঘপথ আমাদের যাত্রা করতে হবে, অন্যদিকে যদি ট্রেন এত লেট হয়, তাহলে এই বিড়ম্বনা কীভাবে মেনে নেয়া যায়। রেল কর্তৃপক্ষ জানেই যে, ঈদের সময় ব্যাপক যাত্রীর চাপ সৃষ্টি হয়। সে অনুযায়ী, তারা আগে থেকে কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করে না। আর সেই মাশুল দিতে হয় আমাদের মতো সাধারণ যাত্রীদের।

রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী লাবণী আক্তার বলেন, রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন সকাল ৯টায় ছেড়ে যাওয়ার কথা থাকলেও সাড়ে ১০ টাতেও ট্রেনটি আসেনি। আমার মতো হাজার হাজার মানুষ ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছে। স্টেশনে বসে এভাবে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করা যাত্রীদের জন্য খুবই বিরক্তকর এবং বিড়ম্বনার। একবার টিকিট সংগ্রহের জন্য ১০-১২ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানো, আবার সেই টিকিট অনুযায়ী ঈদযাত্রার সময় ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়, এই বিষয়গুলো যে কতটা ভোগান্তির, তা শুধু আমাদের মতো যাত্রীরাই উপলব্ধি করতে পারে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার আমিনুল হক জুয়েল বলেন, ঈদযাত্রায় বেশি মানুষের চাপ মোকাবিলা করতে হয়। যাত্রী বেশি হওয়ায় ট্রেনগুলো বিভিন্ন স্টেশনে থামলে যাত্রী ওঠানামায় আগের চেয়ে সময় অনেক বেশি লাগছে। ফলে ট্রেনগুলো ঢাকায় আসছে নির্ধারিত সময়ের অনেক পর। ফলে ঢাকা থেকে ট্রেনগুলো ছেড়ে যেতেও দেরি হচ্ছে। ঈদের বিশেষ তিনটি ট্রেন এদিন থেকে যাত্রী টানা শুরু করবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে, সদরঘাট থেকেও ঈদের বিশেষ অতিরিক্ত লঞ্চযাত্রা শুরু হয়েছে। ঢাকা-বরিশাল-ঢাকা নৌপথে স্বাভাবিক সময়ে ২১টি বেসরকারি লঞ্চ চলাচল করে। ঈদ সামনে রেখে এখন ট্রিপের সংখ্যা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৫০টিরও বেশি। আর ঈদযাত্রায় শুধু এই রুটে দুই শতাধিক নৌযান চলাচল করবে। ঈদের পর এক সপ্তাহ পর্যন্ত বাড়তি লঞ্চের যাত্রীসেবা চালু থাকবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে লঞ্চ মালিকদের আশঙ্কা, প্রবল স্রোতের টানে লঞ্চ নদীতে আটকা পড়ে কাৎ হয়ে যেতে পারে। এসব মোকাবেলায় অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) প্রস্তুতি নেই।

অন্যদিকে সড়ক পথেও ঈদযাত্রার মূলস্রোত শুরু হয়েছে। গাবতলী, মহাখালী ও সায়দাবাদ টার্মিনাল থেকে সকাল থেকেই দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে ছেড়ে গেছে ঈদযাত্রার বিশেষ বাসগুলো। এখন পর্যন্ত বাসের শিডিউল বিপর্যয়ের কোনো তথ্যও পাওয়া যায়নি।

তবে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মহাসড়কের ৮০০ কিলোমিটারের অনেকাংশেরই সংস্কার কাজ শেষ না হওয়ায় এবং পশুবাহী ট্রাকের বিশৃঙ্খল চলাচলের কারণে বিভিন্ন মহাসড়ক ও রাজধানীর সড়কগুলোর স্থানে স্থানে তীব্র যানজটের আশঙ্কা করা হচ্ছে। যানজট শুরু হলে বেশিরভাগ রুটেই বাসগুলোও শিডিউল মেনে চলতে পারবে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত