মঙ্গলবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

মাথাকাটা গুজবে সরকারবিরোধীদের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে: আইজিপি

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

পদ্মাসেতু নির্মাণে মাথাকাটা গুজব ছড়ানো ও গণপিটুনির ঘটনায় সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

বুধবার পুলিশ সদর দফতরের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

পুলিশ প্রধান বলেন, গুজব ও গণপিটুনির ঘটনায় ৩১টি মামলায় এ পর্যন্ত ১০৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মাথাকাটার গুজব ছড়ানোর কাজে ব্যবহৃত ৬০টি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ও ২৫টি ইউটিউব লিংক এবং ১০টি ওয়েব পোর্টাল বন্ধ করা হয়েছে। এসব ফেসবুক ও ইউটিউব লিংকের মাধ্যমে সুপরিকল্পিতভাবে গুজব ছড়ানো হচ্ছিল। তিনি বলেন, যতগুলো ঘটনা ঘটেছে সবই গুজব। যারা নিহত হয়েছে কেউই ছেলেধরা ছিল না।

তিনি বলেন, গুজব রটালে তাদের কঠোর হাতে দমন করা হবে। জঙ্গিবাদ ও মাদকের মতো গুজবের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানে রয়েছি আমরা। গুজব রোধে আগামীকাল থেকে সচেতনতা সপ্তাহ শুরু হবে। সমন্বিতভাবে আমরা কাজ করছি। মেট্রোপলিটনসিটিতে জন প্রতিনিধিরাও আমাদের সঙ্গে কাজ করবেন। থানা পর্যায়ে স্কুল-কলেজে যাবে পুলিশ। তাদের সহায়তা দেবে কমিউনিটি পুলিশ। আগামী শুক্রবার জুমার নামাজে খুতবায় ইমামরা বয়ান করবেন।

জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, সারাদেশে গুজবের কারণে এখন পর্যন্ত গণপিটুনিতে আটজনের মৃত্যু হয়েছে। প্রতিটি ঘটনা আমরা তদন্ত করে দেখেছি, নিহত কেউ ছেলেধরা বা অপহরণকারী ছিলেন না। সবাই নিরীহ ও নিরপরাধ ছিলেন।

আইজিপি বলেন, একটি স্বার্থান্বেষী মহল দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য আন্দোলনসহ নানা উপায় অবলম্বন করে ব্যর্থ হয়ে এখন গুজব ছড়াচ্ছে। তারা দেশের বাইরে থেকেও গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করছে। গুজবের ঘটনায় এ পর্যন্ত যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের কয়েকজনের সরকারবিরোধী রাজনীতিক দলের যোগসূত্র পেয়েছি। জড়িতদের প্রোফাইল তৈরির কাজ চলছে।

গুজব ছড়ানোর পোস্টের সূত্রপাত দুবাই থেকে জানিয়ে জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, এ সংক্রান্ত প্রথম যে পোস্টটি আমাদের নজরে আসে সেটি ছিল দুবাই থেকে। দুবাই থেকে প্রথম পোস্ট করেন, ‘পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে’। তিনি বিরোধী দলীয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। আমরা তথ্য পেয়েছি, এদের অনেকে বিরোধী দলীয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। সারাদেশে এখন পর্যন্ত ৩১টি মামলা হয়েছে। এর বিপরীতে ১০৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।আমরা আহ্বান জানিয়েছি, কেউ আইন নিজের হাতে আইন তুলে নেবেন না। কাউকে হত্যা করবেন না।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত