রবিবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

রংপুরবাসীর ভালবাসার কাছে আমরা হেরে গেছি: জিএম কাদের

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

রংপুরবাসীর ভালবাসার কাছে হেরে গিয়ে এরশাদের মরদেহ তাদের হাতেই তুলে দেওযার কথা জানালেন জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জি এম কাদের। তিনি বলেন, রংপুরবাসীর ভালবাসার কাছে আমরা হেরে গেছি। তাই তাদের হাতে মরদেহ ‍তুলে দিয়ে আমরা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে এসেছি। জানাজা শেষে চেয়েছিলাম তাকে (হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ) ঢাকায় নিয়ে যেতে। কিন্তু রংপুরবাসীর আবেগের কাছে আমরা হার মেনেছি। রওশন এরশাদও এ সিদ্ধান্তে সম্মতি দিয়েছেন। ’’

মঙ্গলবার বিকালে রংপুরের পল্লী নিবাসে এরশাদের দাফনের সিদ্ধান্ত নেয়ার পর জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা।

মহাসচিব রাঙ্গা বলেন, রংপুরের মানুষের ভালোবাসার ও আকুতির কাছে আমরা পরাজিত হয়েছি। আমরা চেয়েছিলাম জাতীয় এ নেতার সমাধি ঢাকাতে হবে, যাতে সারা দেশেরসহ আন্তর্জাতিক ব্যক্তিবর্গ তার সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে পারে। আমরা তার কবরের পাশে মিউজিয়ামসহ যাবতীয় স্থাপনা করব।

রংপুর কালেক্টরেট ঈদগাহ মাঠে জানাজা শেষে ইতিমধ্যেই সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মরদেহ দাফনের জন্য পল্লী নিবাসে আনা হয়েছে।

এরশাদের কফিনবাহী গাড়িতে ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু এরশাদ রংপুর-৩ (সদর) আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি এ আসন থেকে টানা ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। রংপুরকে জাতীয় পার্টির ঘাঁটি বিবেচনা করা হয়। এরশাদ জেলে থেকেও এখান থেকে ভোট করে বারবার নির্বাচিত হয়েছেন।

প্রসঙ্গত, রোববার সকাল পৌনে ৮টায় রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন মৃত্যুবরণ করেন সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার বয়স হয়েছিল ৮৯ বছর। তিনি রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন।

রোববার বাদ জোহর ঢাকা সেনানিবাস কেন্দ্রীয় মসজিদে তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এর পর সোমবার বেলা ১১টায় জাতীয় সংসদে দ্বিতীয় এবং বাদ আসর বায়তুল মোকাররম মসজিদে তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে করে রংপুরে নিয়ে সেখানে চতুর্থ জানাজা শেষে তার মরদেহ পল্লী নিবাসে নেয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত