মঙ্গলবার, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

স্বাধীনতার আন্দোলনে ৭ই জুন ছিল ‘টার্নিং পয়েন্ট’: ওবায়দুল কাদের

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

স্বাধীনতার আন্দোলনে ৭ই জুন ‘টার্নিং পয়েন্ট’ ছিল বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (৭জুন) রাজধানীর ধানমন্ডিতে ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এ সময় তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘৭ই জুন আমাদের স্বাধীনতার পথে ঐতিহাসিক এক মাইলফলক। এদিন ঘোষিত ঐতিহাসিক ছয় দফার লক্ষ্যই ছিল স্বাধীনতার মূলমন্ত্র। এজন্য স্বাধীনতার আন্দোলনে ৭ই জুন ছিল ‘টার্নিং পয়েন্ট।’

১৯৬৬ সালের ৭ই জুন বাঙালির মুক্তির সনদ ঐতিহাসিক ছয় দফা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ছয় দফার ভিত্তিতেই পরবর্তী সময়ে ঊনসত্তরের গণবিস্ফোরণ এবং ১১ দফা আন্দোলন। এরপর ১৯৭০ সালের নির্বাচন ও ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ। আর এই ভাষণের মধ্য দিয়েই মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা অর্জন।

মনু মিয়াসহ যে সকল শহীদরা সেদিন আত্মবলিদান দিয়ে গেছেন তাঁদের শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন তিনি বলেন, ‘৭ জুনের পথ ধরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। আর আজ আমাদের মুক্তির সংগ্রামের কাণ্ডারি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি শোষণ ও দারিদ্র্যমুক্তির মধ্য দিয়ে। ’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘যারা স্বাধীনতার মাইলফলক এই দিবসটি কে অস্বীকার করে তারা মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধ ও চেতনাকে বিশ্বাস করে না।’

শুক্রবার (৭ জুন) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আওয়ামী লীগ নেতারা জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। প্রথমে আওয়ামী লীগ নেতারা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও দক্ষিণ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব লীগ, যুব মহিলা লীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগসহ অন্যান্য সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

এ সময় আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মুকুল বোস, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, কর্ণেল (অব.) ফারুক খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুরনাহার লাইলী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য আখতারুজ্জামান ও আমিরুল আলম মিলননসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত