সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

‘শুধু রাজনীতিই করি না, আমরা একটা পরিবার’

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা যারা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ করি তারা শুধু রাজনীতিই করিনা, আমরা একটা পরিবার। একটা পরিবারের মতোই চলি। এভাবেই যেন এই সংগঠনটা এগিয়ে যেতে পারে।

শনিবার (২৫ মে) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর উদ্বোধনের শুরুতে তিনি একথা বলেন।সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের আওতাধীন এই প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করা হয়।

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে গোমতী দ্বিতীয় সেতু ও মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় দ্বিতীয় মেঘনা সেতু, সাউথ এশিয়া সাব রিজিওনাল ইকোনমিক কো-অপারেশন (সাসেক) সড়ক সংযোগ প্রকল্পের আওতায় জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেঙ্গা মহাসড়কে কোনাবাড়ি ও চন্দ্রা ফ্লাইওভার, কালিয়াকৈর, দেওহাটা, মির্জাপুর ও ঘারিন্দা আন্ডারপাস এবং কড্ডা-১ সেতু ও বাইমাইল সেতু উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

পবিত্র রমজানের মোবারকবাদ এবং ঈদের আগাম শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে আমি খুব আনন্দিত। আজকে বিভিন্ন সেতু , আন্ডারপাস-ওভারপাস, ফ্লাইওভার উদ্বোধন করব। আমাদের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকার পর তিনি আমাদের মাঝে ফিরে এসেছেন। আল্লাহ রাব্বুলামিনের কাছে শুকরিয়া আদায় করি। দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। কারণ সকলেই তার জন্য দোয়া করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে বলেন, ‘সে ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতি করে যাচ্ছে এবং দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য কাজ করেছে। আমি একটি কথা বলতে চাই, আমরা যারা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ করি তারা শুধু রাজনীতিই করিনা, আমরা একটা পরিবার। আমি ছোট বেলা থেকে আমার বাবাকে দেখেছি, মাকে দেখেছি, প্রত্যেকটি নেতাকর্মীকে দেখেছি, আমরা একটা পরিবারের  মতো। কিন্তু বড় হয়েছি। এটা হলো বাস্তবতা।

কাজেই যখনি কোন সমস্যা হয়, সুখে-দুঃখে সবসময় আমরা সাথী হয়ে চলি। আমি সেটিই বলব, এভাবেই যেন এই সংগঠনটা এগিয়ে যেতে পারে।’

জাতির পিতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। এই স্বাধীনতা অর্জনের জন্য তিনি সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলেছিলেন। বাংলাদেশের মানুষকে স্বাধীনতার চেতনায় তিনি উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের মধ্য দিয়ে একটি স্বাধীন দেশ হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছি। আমাদের দুভার্গ্য, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার মাত্র সাড়ে তিন বছরের মধ্যে জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যা করা করা হয়। সেই হত্যার ফলে বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীন জাতি হিসাবে যে অগ্রযাত্রা ছিল, একটা স্বাধীন জাতি হিসাবে যে মর্যাদা পাওয়ার কথা ছিল বা দেশটা যতটা উন্নত হওয়ার কথা ছিল, সেই উন্নতটা হতে পারেনি, এটাই হচ্ছে আমাদের দুভার্গ্য।

শেখ হাসিনা বলেন, এরপর ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে। এরপরেই দেশের মানুষের জীবনে উন্নয়নের ছোঁয়া আমরা পৌঁছে দিতে পেরেছি। সরকারে আসার পর থেকে জাতির পিতার সেই আদর্শ মাথায় নিয়েই আমরা কিন্তু কাজ করে যাচ্ছি। যার ফলে আজকে দেশের মানুষ তার শুভফল পাচ্ছে।

এজন্য আওয়ামী লীগের প্রতি বিশ্বাস আস্থা ও ভোট দেওয়ায়   দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন,  বন্ধুপ্রতিম উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাসহ সকলের সহযোগিতায় বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে ।

উদ্বোধন করা প্রকল্পগুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে অত্যন্ত উপযোগী। পাশাপাশি আমাদের যে আঞ্চলিক সহযোগিতার ক্ষেত্রটা তৈরি করেছি, সেখানেও একটা বিরাট অবদান রাখবে। বলেন,  বর্তমান বিশ্বটা একটা গ্লোবাল ভিলেজ। আর্থসামাজিক উন্নতি করতে হলে সকলের সাথে মিলেই চলতে হবে । সেইক্ষেত্রে আমরা মনে করি এই কাজগুলো শুধু আমাদের জন্য না, আমাদের আঞ্চলিক সহযোগিতার জন্যও একটা বিরাট অবদান রাখবে। এসময় জাপান সরকার, এশিয়ান ডেভলপমেন্ট ব্যাংক থেকে উন্নয়ন সহযোগী সকল সংস্থাকে সহযোগিতা করার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন প্রধানমন্ত্রী।

অবকাঠামোগত খাতে সরকারের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে ভবিষ্যতে আরও উন্নতি হবে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। ইনশাল্লাহ এগিয়ে নিয়ে যাবো। আজকে বাংলাদেশ বিশ্বের একটা উন্নয়নের রোল মডেল হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। এই উন্নয়নের গতিধারাটা অব্যাহত থাকুক। সেটাই আমরা চাই।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, জাপানের রাষ্ট্রদূত এইচ. ই. মি. হিরোয়াসু ইজুমি। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, মুক্তিযুদ্ধ বিষষক মন্ত্রী আকম মোজাম্মেল হকসহ মন্ত্রিপরিষদের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান।
এরপর ভিডিও কনফারেন্সের  মাধ্যমে পঞ্চগড়-ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে নতুন আন্তঃনগর ট্রেন পঞ্চগড় এক্সপ্রেস উদ্বোধনও করেন প্রধানমন্ত্রী।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত