রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

‘মোদি হারছেনই, বুথফেরত সমীক্ষা বিশ্বাস করি না’

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল জানা যাবে ২৩ মে। এবারের নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনই পাওয়ার আশা করছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে গতকাল রোববার নির্বাচনের শেষ দফা ভোটের পর গণমাধ্যমে বিভিন্ন বিশ্লেষণে বলা হচ্ছে, মমতা যেভাবে ভাবছেন, ফলাফল সে রকম নাও হতে পারে। তবে মমতা আশা করছেন, নির্বাচনে হারছেন মোদি।

লোকসভা নির্বাচন নিয়ে দুই রকম স্বপ্ন ছিল মমতার। এক. তাঁর দল এবার পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনই জিতবে। দুই. প্রধানমন্ত্রী হওয়ার। মমতার ধারণা ছিল, এবার রাজ্যপাট থেকে বিরোধীরা একটি আসনও পাবে না। আর দিল্লিতে গঠিত হবে জনগণের সরকার। আর সেই সরকার গড়ার প্রধান কারিগর হবেন মমতা নিজে। আর এই লক্ষ্যে মমতার দলের নেতা থেকে মন্ত্রী, সাংসদ, বিধায়কেরা একযোগে মাঠে নেমে স্লোগান তুলেছিলেন, ভারত এবার বাঙালি প্রধানমন্ত্রী পাবে। মমতার হিসাব ছিল, এবার বিজেপি উত্তর প্রদেশ, বিহার, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, গুজরাট, ওডিশা, অন্ধ্র প্রদেশে তেমন আসন পাবে না। ফলে, সরকার গড়ার সুযোগ আসবে মমতার প্রস্তাবিত ‘ইউনাইটেড ইন্ডিয়া’ জোটের। এই জোটের কোনো শরিক দল ৪২ আসন পাবে না। সেই নিরিখে শীর্ষে থাকবে মমতার দল তৃণমূল। ফলে, এই ইউনাইটেড ইন্ডিয়া সরকার গড়তে গেলে বড় দল হিসেবে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সুযোগ আসবে মমতার।

তবে বুথফেরত সমীক্ষা মমতার সেই স্বপ্নকে ওলট–পালট করে দিয়েছে। গতকাল ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের বুথফেরত সমীক্ষায় ইঙ্গিত দেওয়া হয়, বিপুল ভোটে ফের ভারতে সরকার গড়বে মোদি। এবিপি নিউজ ও নিয়েলসনের বুথফেরত সমীক্ষায় ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গে মমতা পাবেন ২৪টি আসন। বিজেপি ১৬টি। আর কংগ্রেস দুটি আসন। বাম দল পাচ্ছে না একটি আসনও। টাইমস নাও ও ভিএমআর তাদের সমীক্ষায় বলছে, মমতা পাবেন ২৮টি আসন। বিজেপি ১১টি, কংগ্রেস ২টি এবং বাম দল ১টি আসন। রিপাবলিক-সি-ভোটারের সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ২৯টি আসন পাবে তৃণমূল, বিজেপি পাবে ১১টি এবং কংগ্রেস পাবে ২টি আসন। সিএমএক্স বলেছে, তৃণমূল পাবে ২৬টি, বিজেপি ১৪টি এবং কংগ্রেস পাবে ২টি আসন। ইন্ডিয়া টুডে বলেছে, তৃণমূল পেতে পারে ১৯ থেকে ২২ আসন, বিজেপি ১৯ থেকে ২৩ এবং কংগ্রেস শূন্য থেকে একটি আসন পেতে পারে। টুডেজ চাণক্য বলেছে, মমতা পাবেন ২৩ আসন, বিজপি ১৮ এবং কংগ্রেস ১টি আসন। এ ছাড়া নিউজ ১৮-আইপিএসওএস বলেছে , তৃণমূল পাবে ৩৬ থেকে ৩৮ আসন, বিজেপি ৩ থেকে ৫ আসন এবং কংগ্রেস শূন্য থেকে একটি আসন। একমাত্র টাইমস নাও-ভিএমআর ছাড়া সব সমীক্ষায় ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, বাম দল এবার কোনো আসন পাচ্ছে না। টাইমস নাও বলেছে, বামেদের ভাগ্যে একটি আসন জুটতে পারে।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, জঙ্গিপুরে সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ছেলে কংগ্রেসের অভিজিৎ মুখার্জি, রায়গঞ্জে সিপিএম প্রার্থী মহম্মদ সেলিম ও কংগ্রেস প্রার্থী দীপা দাসমুন্সী, মুর্শিদাবাদে সিপিএম প্রার্থী সাংসদ বদরুদ্দোজা খান, বালুরঘাটে তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ, বারাকপুর বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিং, আসানসোলে বিজেপির প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়, কলকাতা উত্তরে বিজেপির রাহুল সিনহা, মেদিনীপুরে তৃণমূলের মানস ভূঁইয়া, বাঁকুড়ায় মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, উত্তর মালদহে কংগ্রেসের মৌসম বেনজির নূর, বিজেপির অভিনেতা প্রার্থী জয় মুখোপাধ্যায় পরাজিত হতে পারেন।

জয় পেতে পারেন ছয় চিত্রতারকা। এঁরা হলেন হুগলিতে বিজেপির লকেট চট্টোপাধ্যায়, আসানসোলে তৃণমূলের মুনমুন সেন, বীরভূমে তৃণমূলের শতাব্দী রায়, বসিরহাটে তৃণমূলের নুসরাত জাহান, যাদবপুরে তৃণমূলের মিমি চক্রবর্তী এবং ঘাটালে অভিনেতা দেব।

বুথফেরত সমীক্ষাকে প্রত্যাখ্যান করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘মোদি হারছেনই। আমি বুথফেরত সমীক্ষা বিশ্বাস করি না।’

সমীক্ষা প্রকাশের পর রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, মমতার দল এই রাজ্যের সব কটি আসন পাচ্ছেন না, এটা নিশ্চিত। বিজেপি এই আসনে বিরাট ভাগ বসাতে চলেছে। সরকার গড়বে বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত