রবিবার, ২৬শে মে, ২০১৯ ইং

ওর মতো ভীতু প্রধানমন্ত্রী জীবনে দেখিনি: প্রিয়াংকা

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

ভারতের লোকসভা নির্বাচন ঘিরে জাতীয় নেতাদের বাকযুদ্ধ চলছে। নেতায় নেতায় কথার লড়াইয়ের উপজীব্য হচ্ছেন প্রয়াত রাষ্ট্রপ্রধানরাও।কংগ্রেসকে ব্যাকফুটে ফেলতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘুরেফিরে আনছেন প্রয়াত প্রধানমন্ত্রীর রাজীব গান্ধীর প্রসঙ্গ। রাজীব গান্ধী নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজে প্রমোদ ভ্রমণ করেছেন মোদির এমন মন্তব্যের জবাব দিয়েছেন কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াংকা গান্ধী। তিনি বলেছেন, ওর (মোদি) মতো ভীতু আর কমজোর প্রধানমন্ত্রী জীবনে কখনও দেখিনি।

বৃহস্পতিবার উত্তরপ্রদেশের প্রতাপগড়ে এক নির্বাচনী সভায় রাজীবকন্যা বলেন, রাজনীতির শক্তি কখনই বড়সড় প্রচার সভা কিংবা টিভি শো থেকে আসে না। গণতন্ত্রে মানুষই সবচেয়ে বড়। রাজনীতিকদের উচিত তাদের সমস্যার কথা শোনা। তাই বিরোধীদের কথা শোনার ক্ষমতা থাকা উচিত মোদির। তবে মানুষের দুর্দশার দিকে নজর দেয়া তো দূর, কীভাবে জবাব দিতে হবে প্রধানমন্ত্রী তা-ও জানেন না।

মোদির সমালোচনার জবাবে প্রিয়াংকা আরও বলেন, ওর থেকে বেশি ভীতু আর কমজোর প্রধানমন্ত্রী আমি জীবনে দেখিনি।

একই দিন হরিয়ানায় সিরসায় এক নির্বাচনী সভায় কংগ্রস সভাপতি রাহুল গান্ধীও মোদির সমালোচনার জবাব দেন। বলেন, বিজেপির প্রধানমন্ত্রী মোদি রাজীব গান্ধী কিংবা আমাকে নিয়ে বলতেই পারেন। কিন্তু একই সঙ্গে তাকে মুখ খুলতে হবে রাফাল কেলেঙ্কারি নিয়েও। তিনি রাফালে কী করেছেন তার জবাব দিতে হবে।

রাহুল বলেন, মোদি যেখানেই যান, ঘৃণা ছড়াতে থাকেন। হরিয়ানায় এক সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে আরেক সম্প্রদায়ের যুদ্ধ বাধানোর চেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি তামিলনাড়ুতে গেলে কোনো একটা পক্ষের সমালোচনা করেন সংঘাত উসকে দেন। মহারাষ্ট্রে গেলে উত্তরপ্রদেশ, বিহারের মানুষের বিরুদ্ধে বলেন, এক ধর্মের মানুষকে অন্য ধর্মের মানুষের সঙ্গে লড়িয়ে দেন।

প্রসঙ্গত, বুধবার দিল্লিতে এক নির্বাচনী জনসভায় মোদি বলেন, জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টিকে রাজীব গান্ধী কখনই গুরুত্ব দিতেন না। ১৯৮৮ সালে নৌবাহিনীর একটি যুদ্ধজাহাজ ব্যবহার করে রাজীব ও তার পরিবার আনন্দ ভ্রমণের জন্য গিয়েছিল।

জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি লক্ষ্য না করে সেখানে রাজীবের পরিবার আনন্দ-ফুর্তি করে কয়েক দিন সময় কাটিয়েছে।

নৌবাহিনী কর্মকর্তাদের রাজীব গান্ধী ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করেছেন অভিযোগ করে মোদি বলেন, ওই সময় নৌবাহিনীর অফিসারদের রাজীব গান্ধীর ব্যক্তিগত কাজ করতে হয়েছিল। যুদ্ধজাহাজটি টানা ১০ দিন ওই দ্বীপেই দাঁড়িয়েছিল।

জাতীয় নিরাপত্তা ইস্যুতে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মোদির অভিযোগ এটিই প্রথম নয়। এর আগেও একাধিকবার এমন অভিযোগ তুলেছেন মোদি।

এর আগে গত শনিবার উত্তরপ্রদেশের জনসভা থেকে দুর্নীতি নিয়ে রাহুল গান্ধীর সমালোচনা করতে গিয়ে রাজীব গান্ধীর প্রসঙ্গ টেনে আনেন মোদি। রাহুলকে উদ্দেশ করে বলেন, আপনার বাবাকে তার লোকেরা ‘মি. ক্লিন’ বলে অভিহিত করলেও ‘এক নম্বর দুর্নীতিবাজ’ হিসেবে তার জীবন শেষ হয়।’

Print Friendly, PDF & Email

মতামত