রবিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

নামল সতর্ক সংকেতও, একদিনে তাপমাত্রা বাড়তে পারে ৫ ডিগ্রি

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

অবশেষে সমুদ্রবন্দরগুলোতে জারি থাকা ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেতও নামিয়ে ফেলতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র প্রভাব কেটে যাওয়ায় আগামী কয়েকদিনে তাপমাত্রা বেড়ে আবার ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। একদিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা ৫ ডিগ্রি পর্যন্ত বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

শনিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল টেকনাফে ৩৪ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

সর্বশেষ আবহাওয়ার পরিস্থিতি অনুযায়ী, উত্তর বঙ্গোপসাগর এবং কাছাকাছি বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে সংকেত নামিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ ভারতের ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ হয়ে ধেয়ে আসার পরিপ্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পায়রা ও মংলা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর ও চট্টগ্রাম বন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত এবং কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলে আবহাওয়া অধিদফতর।

শনিবার সকালে ঘূর্ণিঝড়টি কিছুটা দুর্বল অবস্থায় বাংলাদেশে প্রবেশ করে। সন্ধ্যা নাগাদ এটি লঘুচাপে পরিণত হয়। শনিবার দুপুর থেকে বিপদ সংকেত নামিয়ে দেশের চারটি সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলে আবহাওয়া বিভাগ।

রোববার সকাল ৯টায় আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, ফরিদপুর-ঢাকা অঞ্চল এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ফণী আরও উত্তর ও উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে প্রথমে স্থল গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয় এবং পরে নিম্নচাপে পরিণত হয়। পরবর্তী সময়ে এটি আরও দুর্বল হয়ে লঘুচাপে পরিণত হয় এবং শেষে গুরুত্বহীন হয়ে যায়।

রোববার সকাল ৯টা থেকে আগামী ৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ দেশের অন্যত্র আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

এ সময়ে সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা ২ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়তে পারে বলেও ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

রোববার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশেই বৃষ্টি হয়েছে। এ সময়ে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে নোয়াখালীর মাইজদীকোর্টে ৯০ মিলিমিটার। ঢাকায় ১২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত