বুধবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

‘ভেঙে’ পড়ার ঝুঁকিতে থেরেসা মের সরকার

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিউজগার্ডেনবিডডটকম:

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে যুক্তরাজ্যের বিচ্ছেদ (ব্রেক্সিট) প্রশ্নে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে কোনো চুক্তি পাস করাতে না পারলে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের সরকারের ‘ভেঙে’ পড়ার ঝুঁকি তৈরি হবে। এরই মধ্যে গুঞ্জন উঠেছে, তিনি হয়তো আগাম নির্বাচনের ডাক দেবেন। যুক্তরাজ্যের সংবাদপত্র সানডে টাইমস-এর এক খবরে এ দাবি করা হয়েছে।

সানডে টাইমস-এর খবরে আরও দাবি করা হয়েছে, মে চুক্তি ছাড়া বেক্সিটের সিদ্ধান্ত নিলে তাঁর সরকারের ইইউপন্থী ছয়জন জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী পদত্যাগ করতে পারেন। আবার ব্রেক্সিটপন্থীদের হুমকির মুখেও আছেন মে। দীর্ঘদিনের জন্য ব্রেক্সিট ঝুলে গেলে তাঁরা পদত্যাগ করতে পারেন।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টে গত শুক্রবার তৃতীয় দফায় থেরেসা মের ব্রেক্সিট চুক্তির ওপর ভোট হয়। কিন্তু ওই ভোটেও তিনি ব্যর্থ হন। এ নিয়ে ব্রেক্সিট চুক্তি পার্লামেন্টে তিনবার প্রত্যাখ্যাত হলো।

যুক্তরাজ্যের আরেক পত্রিকা দ্য মেইল-এর খবরে গতকাল বলা হয়েছে, কাল মঙ্গলবার ব্রেক্সিট চুক্তি এবং এর বিকল্প প্রস্তাবের ওপর ভোট অনুষ্ঠিত হতে পারে। এই ভোটে চুক্তি পাস না করাতে পারলে থেরেসা মে আগাম নির্বাচনের জন্য ডাক দেবেন কি না, তা নিয়ে তাঁর উপদেষ্টাদের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে।

৪৬ বছর ধরে ইইউ সদস্য যুক্তরাজ্য। ইইউ ছাড়তে প্রায় তিন বছর আগে এ নিয়ে দেশটিতে গণভোট হয়। ওই সময় ব্রেক্সিটের পক্ষে ৫২ শতাংশ ভোট পড়েছিল। বিপক্ষে পড়েছিল ৪৮ শতাংশ ভোট।

ব্রেক্সিট চুক্তির ওপর তৃতীয় দফা ভোটের আগে থেরেসা মে ঘোষণা দিয়েছিলেন, চুক্তি পাস হলে তিনি পদত্যাগ করবেন। কিন্তু তারপরও চুক্তি প্রত্যাখ্যান করেন আইনপ্রণেতারা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্রের বরাত দিয়ে দ্য মেইল বলেছে, আগামী বুধবার আগাম নির্বাচনের ঘোষণা আসতে পারে। কিন্তু এই নির্বাচনের প্রস্তাব পাসের জন্য পার্লামেন্টের দুই-তৃতীয়াংশ আইনপ্রণেতার সমর্থন লাগবে।

অবজারভার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির আইনপ্রণেতারা চান না থেরেসা মে আরেকটি নির্বাচনে দলকে নেতৃত্ব দিক। তাঁর নেতৃত্বে ২০১৭ সালের নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে দলটি। আরেক দৈনিক টেলিগ্রাফ-এর খবরেও একই কথা দাবি করা হয়েছে। সংবাদপত্রটির খবরে বলা হয়, কনজারভেটিভ দলের জ্যেষ্ঠ সদস্যরা মনে করছেন, আগাম নির্বাচনে মে নেতৃত্ব দিলে দলটি বিপর্যয়ের মুখে পড়বে।

এদিকে যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা এমিলি থোর্নবেরি বলেছেন, থেরেসা মে সরকারের ওপর আরেকটি অনাস্থা ভোট আয়োজনের সময় এসেছে। এর আগে গত জানুয়ারিতে সরকারের ওপর আস্থা ভোট হয়। ওই ভোটে উতরে যান থেরেসা মে।

এদিকে গার্ডিয়ান জানায়, যুক্তরাজ্যের বিচারবিষয়ক মন্ত্রী ডেভিড গাওকে প্রধানমন্ত্রী মের উদ্দেশে বলেছেন, ব্রেক্সিট চুক্তি পার্লামেন্টে পাস করাতে একটি নমনীয় চুক্তি উপস্থাপন করতে হবে।

এদিকে দ্য মেইল তাদের পরিচালিত একটি জরিপের ফলাফল গতকাল প্রকাশ করেছে। এতে ক্ষমতাসীন দল কনজারভেটিভ পার্টির চেয়ে ৫ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে বিরোধী লেবার পার্টি।

গত শনিবার এক আইনপ্রণেতা জানান, ব্রিটিশ পার্লামেন্টে কনজারভেটিভ দলের সদস্যরা ব্রেক্সিট কার্যকরে থেরেসা মেকে নেতৃত্ব দিতে অনুরোধ করেছেন। যদি কোনো বিকল্প না থাকে, তাহলে চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিটের কথা বলেছেন তাঁরা। দ্য সান জানায়, ওই চিঠিতে ক্ষমতাসীন দলটির ৩১৪ জন আইনপ্রণেতার মধ্যে ১৭০ জন স্বাক্ষর করেন।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত