বুধবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

অশ্বিন কাজটা ‘ঠিক’ করলেন কি?

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিউজগার্ডেনবিডডটকম:

আইপিএলে কাল রাজস্থান-পাঞ্জাব ম্যাচের জয়-পরাজয় ছাপিয়ে আলোচনার কেন্দ্রে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের করা ‘মানকাড়’ আউট। জস বাটলরকে যেভাবে আউট করেছেন পাঞ্জাব অধিনায়ক, এ নিয়ে তুমুল হইচই ক্রিকেট বিশ্বে। দুই ধরনের মতামতই পাওয়া যাচ্ছে। এক পক্ষ বলছে, অশ্বিন ক্রিকেটীয় চেতনায় আঘাত দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ বলছে, তিনি ভুল কিছু করেননি।

জয়পুরে কাল রাজস্থান ইনিংসের ১৩তম ওভারের শেষ বলে ঘটেছে ঘটনাটা। জয় থেকে ৭৭ রান দূরে স্বাগতিক রাজস্থান। হাতে ৯ উইকেট। থিতু হয়ে যাওয়া ব্যাটসম্যান জস বাটলার অপরাজিত ৬৯ রানে। বল করতে যাচ্ছিলেন অশ্বিন। বল করতে গিয়ে দেখলেন উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে আছেন ননস্ট্রাইকে থাকা বাটলার। বল না করে স্টাম্প ভেঙে দিলেন। হতভম্ব বাটলারের দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে মাঠের আম্পায়ার তৃতীয় আম্পায়ারের সহযোগিতা চাইলেন। এবং আউট! অশ্বিনের সঙ্গে লেগে গেল বাটলারের। এ আউট যে মানতে পারেননি ড্রেসিংরুমে ফেরার সময় ইংলিশ ব্যাটসম্যানের মুখ দেখেই বোঝা যাচ্ছিল। বোঝা যাচ্ছিল, প্রকাশের অযোগ্য ভাষায় গালি বর্ষণ চলছে তাঁর! বাটলার ফেরার পর আর স্বচ্ছন্দে এগোতে পারেনি রাজস্থান, ম্যাচটা হারে ১৪ রানে। খেলা শেষে বাটলার অশ্বিনের সঙ্গে প্রথাগত হাত মেলান কি না, সেটিও দেখার ছিল। রাজস্থানের ইংলিশ তারকা হাত মিলিয়েছেন, তবে অন্য দিকে তাকিয়ে এবং সেটিও দলের কোচ প্যাডি আপটনের অনুরোধে।

খেলা চলার সময়ই বাটলারের আউট নিয়ে ধারাভাষ্যকররা দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেলেন। কেভিন পিটারসেন-ব্রেট লি বারবার ক্রিকেটীয় চেতনার কথা তুলে ধরলেন। তাঁদের যুক্তি, অশ্বিন ক্রিকেটীয় চেতনায় আঘাত দিয়েছেন। কিন্তু কুমার সাঙ্গাকারা মনে করেন, অশ্বিন অন্যায় করেননি, নিয়মের ভেতরেই তিনি আউট করেছেন। সাধারণত এভাবে কোনো ব্যাটসম্যানকে আউট করার আগে তাঁকে একবার সতর্ক করে দেওয়ার ভদ্রতা দেখানো হয়। অশ্বিন প্রথমবারেই এ কাজ করেছেন। আর বাটলার যে রান নিতেই উইকেট ছেড়ে বেরিয়েছিলেন, সেটিও নয়। অশ্বিন বল ছোড়ার ভঙ্গি করার সময়ও বাটলার ক্রিজে ছিলেন। অশ্বিন হঠাৎ করে থেমে যান, কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে তারপর স্টাম্প ভেঙেছেন। সেদিকে বাটলারের নজর দেওয়া সম্ভব হয়নি। বাটলার এ ক্ষেত্রে স্বভাবজাত ভঙ্গিতে বোলারের ফলো-থ্রু অনুসরণ করছিলেন। অবচেতনভাবে দাগ থেকে বের হয়ে গিয়েছিল তাঁর ব্যাট। অশ্বিন-কাণ্ড নিয়ে রাজস্থান মেন্টর শেন ওয়ার্ন একাধিক টুইট করেছেন। একটিতে তিনি বলেছেন, ‘অশ্বিন যে কাজটা করেছে চূড়ান্ত অমর্যাদার। আশা করি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড আইপিএলে এ ধরনের আচরণ একেবারেই সমর্থন করবে না।’

হার্ষা ভোগলে অবশ্য অশ্বিনের পক্ষে। ভারতীয় এ ধারাভাষ্যকর টুইট করে জানিয়েছেন, অশ্বিন ভুল কিছু করেননি। মানকাড়েডের নতুন আইন অনুযায়ী, এখানে ব্যাটসম্যানকে সতর্ক করার দরকার নেই। এ নিয়মটা বদলানোই হয়েছে খেলার চেতনা ব্যাটসম্যানরা নষ্ট করেছিলেন বলে। দেখা যাচ্ছিল নন স্ট্রাইকার এগিয়ে থাকায় রান নেওয়ার সময় কয়েক ইঞ্চি সুবিধা নিচ্ছেন ব্যাটসম্যানরা। এ সুবিধা বন্ধেই নিয়মটা সংশোধন করে বলা হয়েছে, বল ছোড়ার সময় যদি বোলার দেখেন, ব্যাটসম্যান ক্রিজ থেকে বের হয়ে গেছে, তিনি রান আউট করে দিতে পারেন। হার্ষা তাই বলছেন, ‘নিয়মে তো (ব্যাটসম্যানকে) সতর্ক করার কিছু নেই। উইকেটকিপার ব্যাটসম্যানকে স্টাম্পিং করার সময় যেমন সতর্ক করার নিয়ম নেই, এটিও তাই।’ হার্ষার এ যুক্তি মানতে পারেননি ওয়ার্ন, ‘তোমাকে নিয়ে আমি হতাশ। তুমি ক্রিকেটের চেতনা নিয়ে এত কথা বলো। এখানে তুমি আসল যুক্তিটাই পাশ কাটিয়ে গেলে।’

মানকড় আউট নিয়ে এত হইচই, সেই অশ্বিন অবশ্য পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে জোরাল যুক্তি দিয়ে বলেছেন, তিনি খেলার চেতনাবিরোধী কোনো কাজ করেননি, ‘সহজাতভাবেই এটা আমি করেছি। পরিকল্পিত কিংবা এমন কিছু ছিল না। খেলার নিয়মের মধ্যে থেকেই করেছি। আর চেতনার প্রশ্নটা কেন আসছে সেটা বুঝতে পারছি না, যদি নিয়মটা থেকে থাকে। আইন যদি না ব্যবহার না করা যায়, সেটি থেকে লাভ কী?’

Print Friendly, PDF & Email

মতামত