শনিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

নিউজিল্যান্ডে আম্পায়ারকে লাথি!

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিউজগার্ডেনবিডডটকম:  ক্লাব ক্রিকেটে বিতর্ক-বচসা নতুন কিছু না। বাংলাদেশের ক্লাব ক্রিকেটে তো এমন ঘটে হরহামেশাই। বাংলাদেশ দল এখন নিউজিল্যান্ড সফরে থাকায় দেশটি নিয়ে দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের আগ্রহ জাগাই স্বাভাবিক। তবে নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে এমন এক ঘটনা ঘটেছে যা লজ্জা পাওয়ার মতোই। স্থানীয় দুই দলের ম্যাচে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত নিয়ে হয়ে গেছে হাতাহাতি। এক খেলোয়াড়ের উপর্যুপরি লাথি খেয়েছেন সে ম্যাচের আম্পায়ার।
ন্যক্কারজনক এই ঘটনা ঘটেছে পারাপারাউমু-ওয়ারারোয়া ক্লাব দুটির ম্যাচে। রোববার সেই ম্যাচে পারাপারাউমু ক্লাবের এক খেলোয়াড় ছিলেন আম্পায়ারের ভূমিকায়। ম্যাচ চলাকালে সেই খেলোয়াড় কাম আম্পায়ারের একটি সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেনি ওয়ারারোয়ার খেলোয়াড়েরা। একপর্যায়ে ওয়ারারোয়ার এক খেলোয়াড় তিনটি লাথি মারেন আম্পায়ারকে।

এই ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে নিউজিল্যান্ডের সংবাদমাধ্যম ‘স্টাফ’ জানিয়েছে, গোটা ব্যাপারটাই ছিল ‘ভীষণ হিংস্র’। প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য অনুযায়ী, আম্পায়ারকে এক খেলোয়াড় আচমকা ঘুষি মেরে মাঠে ফেলে দেওয়ার পর তাঁকে তিনটি লাথি মেরেছেন আরেক খেলোয়াড়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, ওয়ারারোয়ার খেলোয়াড়দের আচরণ ছিল ‘জঘন্য’। ‘সম্ভবত তাঁর নাক (আম্পায়ার) ভেঙে গেছে। ওয়ারারোয়ার তিন-চারজন খেলোয়াড় তাঁকে লাথি মেরেছেন’—বলেন সেই প্রত্যক্ষদর্শী। শেষ পর্যন্ত পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের জনসংযোগ কর্মকর্তা রিচার্ড বুক জানিয়েছেন, ঘটনার তদন্ত চলছে। ক্রিকেট মাঠে শারীরিক আঘাতের ঘটনা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

নিউজিল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে অফিশিয়ালদের ঘাটতি রয়েছে। এ কারণে খেলোয়াড়দের প্রায়ই আম্পায়ারের ভূমিকায় দেখা যায়। ম্যাচে দুই দলের খেলোয়াড়েরাই অফিশিয়ালের ভূমিকা পালন করে থাকেন।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত