শনিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

দ্রুত মামলা নিষ্পত্তিতে পুলিশকেও নজর দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে পুলিশকে নজর দিতে হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সারা দেশে পুলিশের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের তিনি একথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা দেখেছি- সাধারণত যে মামলাগুলো করা হয়, তা সময়মতো সম্পন্ন হয় না। যারা মামলাগুলো পরিচালনা করেন তাদের এ বিষয়ে ঘাটতি আছে। আর মামলা হওয়ার পর সেই মামলার ওপরে নজরদারি করা। মামলাটা যাতে সঠিকভাবে তাড়াতাড়ি পরিচালিত হয় সেজন্য আপনাদের উদ্যোগ নেওয়া উচিত।’

তিনি বলেন, ‘মামলার জট কমিয়ে আনতে আলাদা একটি টিম তৈরি করা উচিত। যে মামলার ভাগ্যে কি হলো সেগুলো চললো কী না? আবার দেখা যায়, এফআইআর দিয়ে ফেলে রাখা হয়েছে। আবার কোর্টে গেলেও সেগুলো বছরের পর বছর ধরে আটকে থাকে। এজন্য আপনাদের আলাদা ব্যবস্থা করতে হবে।’

এ সময় পুলিশের দেওয়া মামলাগুলোর যেগুলো নানা জটিলতায় আদালতে ঝুলে আছে সেগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি করার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করার পর কেউ কেউ কথা বলেছে। কিন্তু এটা আমরা করেছি মানুষের নিরাপত্তা দিতে, নিরীহ মানুষ আছে, তাদের অধিকার সংরক্ষিত রাখতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা আর সামাজিক শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ বাহিনীর গৌরব ধরে রাখতে হবে।পুলিশ বাহিনী অত্যন্ত দক্ষতার সাথে নানা সংকট মোকাবেলা করেছে। পুলিশের কী কী দরকার চাওয়ার আগেই তা পূরণ করেছে সরকার।’

অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা এবং সাইবার ক্রাইমের বিষয়ে পুলিশকে সজাগ থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

‘আর এখনকার দিনে ক্রাইমটা এসে গেছে সাইবার ক্রাইম। ইতোমধ্যে সাইবার ক্রাইম নিয়ন্ত্রণের আইনও করে দিয়েছি। যেটা নিয়ে বেশ হইচই, অনেকে সেটার বিরুদ্ধে কথা বলে কিন্তু বাস্তবতা হলো যে এই আইনটা একান্তভাবে করা হয়েছে মানুষের নিরাপত্তা দেবার জন্য। যারা নিরীহ সাধারণ জনগোষ্ঠীর তাদের যে মানবাধিকার রয়েছে সেটা সংরক্ষিত করবার জন্যই এই আইনটা আমরা করেছি। এটা মানুষের অধিকার রক্ষা, মানুষের জীবনমান বাঁচানোর জন্যই করা। তাই পুলিশ বাহিনীকে এসব তদন্ত করে সাথে সাথে এর সাথে জড়িতদের শনাক্ত, গ্রেফতার এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে হবে। যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়াও, সারাদেশে বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রত্যেকটি এলাকায় বিশেষায়িত পুলিশ ইউনিট করে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি। এছাড়াও, সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে তাৎক্ষনিক দ্রুত অ্যাকশনে যাওয়ার সক্ষমতা অর্জনসহ এর উপর বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ বেশী বেশী প্রয়োজনের উপর গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত