শুক্রবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

শুভেচ্ছা বিনিময় করতে গিয়েও কথা বলা যায়: কাদের

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির না যাওয়ার সিদ্ধান্তকে তাদের নেতিবাচক রাজনীতির ধারাবাহিকতা বলে মন্তব্য করেছেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ সোমবার সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

আগামী ২ ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠান সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটি আনুষ্ঠানিক সংলাপ নয়, শুভেচ্ছা বিনিময়। শুভেচ্ছা বিনিময় করতে গিয়েও কথা বলা যায়। এখানে তারা এলে, কথা বললে সেখানে আলাপ-আলোচনা হতে পারত। কিন্তু তারা যেভাবে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন তা গণতন্ত্র সম্মত নয়। এটা তাদের নেতিবাচক রাজনীতির ধারাবাহিকতা।

তিনি বলেন, যেসব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে নির্বাচনপূর্ব সংলাপ হয়েছে তাদের সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এটি একটি গাার্ডেন পাটি হবে, জাস্ট ভিউ এক্সচেঞ্জ করার জন্য। আনুষ্ঠানিক কোনো সংলাপ নয়। শুভেচ্ছা বিনিময় করতে গিয়েও তো অনেক কথা হয়। তারা কেন আসতে চান না সেটা তাদের বিষয়। তবে, তাদের বাদ দিয়ে তো আমন্ত্রণ জানানো সম্ভব নয়। তারা (বিএনপি) একটি বড় রাজনৈতিক দল।

তাদের নেতিবাচক রাজনীতির কারণে জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। সেই ধারাবাহিকতা তারা এখনো চালিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি চেষ্টা করছে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে। সার্কভুক্ত দেশসহ বিভিন্ন দেশে তারা চিঠি লিখেছে। কিন্তু বর্তমান সরকার গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। জাতিসংঘের প্রেসিডেন্ট, আমেরিকার প্রেসিডেন্টসহ সব দেশের প্রধানরা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির না যাওয়ার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার আহ্বান জানান ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণফোরামের দুই নির্বাচিত সদস্যের শপথ নেওয়ার বিষয়ে গণমাধ্যমে যে খবর এসেছে সেটিকে ইতিবাচক বলে মনে করছেন ওবায়দুল কাদের। কাদের বলেন, এটি ভালো বিষয়। বিরোধী দল যত শক্তিশালী হবে গণতন্ত্রও তত শক্তিশালী হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, গত ৫ বছর তারা সংসদে ছিল না তাই সংসদ অকার্যকর হয়নি। এছাড়া, ১৪ দলের বিষয়ে তিনি বলেন, তারা আমাদের বন্ধু। তাদের যেকোনো সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত