সোমবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

বিদ্রোহীরা মঙ্গলবারের মধ্যে সরে না দাঁড়ালে ব্যবস্থা: কাদের

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

নিউজগার্ডেনবিডিডটকম: 

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা আগামীকাল মঙ্গলবারের মধ্যে সরে না দাঁড়ালে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমরা আজ সোমবার পর্যন্ত অপেক্ষা করব। দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা আগামীকালের মধ্যে সরে না দাঁড়ালে দলের বর্ধিতসভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোমবার নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে দ্বিতীয় কাঁচপুর ও মেঘনায় দ্বিতীয় মেঘনা চার লেনের সেতুর কাজ পরিদর্শনে গিয়ে ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন।

প্রার্থিতা প্রত্যাহারের তো সুযোগ নেই, কীভাবে বিদ্রোহীরা সরে দাঁড়াবে-এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন তো আর মনোনয়ন প্রত্যাহারের সুযোগ নেই। প্রেস কনফারেন্স করে দলীয় প্রার্থীকে সমর্থন দিতে হবে বিদ্রোহীদের।

নির্বাচনী সহিংসতার বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ যারা বিঘ্নিত করছে, তারা যে দলেরই হোক তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে পারে নির্বাচন কমিশন। আমি ইসিকে সেই আহ্বানই জানাই।

বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা কম হওয়ার জন্য দলীয় কৌশলকেই ক্রেডিট দিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ইতিহাসে এবার বিদ্রোহী প্রার্থীর সংখ্যা অনেক কম হয়েছে কৌশলী নেতৃত্বের কারণে।

একই আসনে আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির প্রার্থিতা ভোটের রাজনীতিতে কোনো সমস্যা সৃষ্টি করবে না জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, কোনো কোনো আসনে আমরা কৌশলগত কারণে নৌকা-লাঙ্গলের প্রার্থী দিয়েছি, আমাদের নেত্রী তা গ্রহণ করেছেন। এতে ভোটের মাঠে আমাদের কোনো সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা নেই।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, কামাল হোসেনরা মুক্তিযুদ্ধের ও স্বাধীনতারবিরোধী পক্ষের শক্তি। তারা সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন।

‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হচ্ছে-অসাম্প্রদায়িক চেতনা। আর কামাল হোসেনরা, যাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে; তারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীশক্তি, স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি এবং যুদ্ধাপরাধের পক্ষের শক্তি’-যোগ করেন কাদের।

বিএনপি-জামায়াতের রাজনীতির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি-জামায়াতের বন্ধুত্ব পুরনো। নতুন করে ছদ্মবেশী গণতন্ত্রী ড. কামাল হোসেন, কাদের সিদ্দিকীসহ আরও কয়েকজন সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে হাত মিলিয়ে ধানের শীষ মার্কায় ভোট করছেন। এটি স্ববিরোধী বক্তব্য ও হাস্যকর।

ড. কামালের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, সবচেয়ে দুঃখজনক ও দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হচ্ছে-ড. কামাল হোসেন যে সুরে কথা বলছেন, তা তার মুখে মানায় না। তিনি এত নিচে নেমে যাবেন আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করতে গিয়ে।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ধারক শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ড. কামাল রাজনীতি করেছেন। আজকে বঙ্গবন্ধুর কন্যা তার প্রধান শত্রু। তার কথাবার্তা আচার-আচরণ থেকে সেটিই মনে হয়। এ জন্য আমাদের তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই।

সারা দেশে নৌকার জোয়ার বসছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকার যে উন্নয়ন করেছে তা দেখে দেশের মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছে। তারা শেখ হাসিনার নৌকায় ভোট দেবে।

এ সময় সেতুমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঢাকা জোনের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুস সবুর প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email

মতামত